বিশ্বের সেরা দেশর স্বীকৃিত পেল সুইজারল্যান্ড

0
607

ম্যাগপাই নিউজ ডেক্স : সম্প্রতি বিশ্বের সেরা দেশের স্বীকৃতি পেল সুইজারল্যান্ড। ইউএস নিউজ এবং ওয়ার্ল্ড রিপোর্টের দ্বিতীয় বার্ষিক ‘বেস্ট কান্ট্রিস’ তালিকায় শীর্ষস্থানীয় সুইজারল্যান্ডের পরেই দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান দখল করেছে যথাক্রমে কানাডা ও ব্রিটেন। আর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জায়গা হয়েছে সপ্তম স্থানে।

তবে এই সপ্তম স্থানের চেয়েও আমেরিকানদের জন্য বেশি দুশ্চিন্তার কারণ হল আন্তর্জাতীক দুনিয়ায় তাদের দেশ সম্পর্কে মানুষের ক্রমবর্ধমান নেতিবাচক ধারণা। বিগত কয়েক বছরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিষয়ে মানুষের মধ্যে হতাশা বেড়েছে, এমনটাই জানা যাচ্ছে এই স্টাডি থেকে।

২০১৭ সালের ‘বেস্ট কান্ট্রিস’-এর এই তালিকা প্রকাশ হয়েছে একটি সুনির্দিষ্ট সমীক্ষার পর। সেই সমীক্ষা সংঘটিত হয় মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন মিটে যাওয়ার ঠিক পরেই। এই সমীক্ষায় বেশ কিছু ব্যবসায়ী, সমাজের অভিজাত শ্রেণির সচেতন মানুষ এবং সাধারণ নাগরিকদের বিভিন্ন দেশ সম্পর্কে তাদের মতামত জানতে চাওয়া হয়। আর সেখান থেকেই উঠে আসে এই ক্রম তালিকা। আমেরিকায় ঠিক যেভাবে কলেজ, হাসপাতাল ও গাড়ি পরিষেবার ক্ষেত্রে মান নির্ধারণ করা হয়, সেভাবেই হয়েছে এই সমীক্ষা। সূত্র: জিনিউজ টুয়েন্টিফোর।

মনোমুগ্ধকর সুইজারল্যান্ড

সময় নিয়ে ঘুরে আসুন সুইজারল্যান্ড থেকে। একটি ছোট দেশ। আল্পস পর্বতের মনোমুগ্ধকর দৃশ্যাবলী ও ছবির মত সাজানো গ্রাম সুইজারল্যান্ডের অন্যতম বৈশিষ্ট্য। তুষার মুকুট পরিহিত আল্পসের চূড়া, ঝিলমিল করা নীল হ্রদ, এমারেল্ড ভ্যালী, হিমবাহ, রুপকথার গল্পের পল্লীর পাশাপাশি এখানে আছে বিশ্বমানের আন্তর্জাতিক রিসোর্ট এবং হাইকিং, বাইকিং, ক্লিম্বিং, স্কিইং, প্যারাগ্লাইডিং ও স্লেজ গাড়িতে চড়ার সুবিধা। সুইজারল্যান্ডের রাজধানী বার্ন মধ্যযুগীয় পুরনো শহর।

১। মেটারহর্ন

আল্পস পর্বতের সবচাইতে উঁচু চূড়ার একটি হচ্ছে সুইজারল্যান্ডের মেটারহর্ন। এই আইকনিক চূড়াটির উচ্চতা ৪৪৭৮ মিটার। ১৮৬৫ সালে প্রথম এই শৃঙ্গে উঠার সময় ৪জন আরোহীই দুঃখজনক ভাবে মৃত্যুবরণ করে। বর্তমানে গরমের সময়ে হাজার হাজার অভিজ্ঞ পর্বতারোহী এই স্থানটিতে যান। এই পর্বতের পাদদেশে মনোমুগ্ধকর গ্রাম জারমেটে অবস্থিত শীর্ষ আন্তর্জাতিক রিসোর্টগুলোর একটি। এখানে আছে ঘোড়ায় টানা গাড়ী, কাঠের তৈরি বাড়ি, বিশ্বমানের হোটেল এবং রেস্টুরেন্ট। বাতাসের গুনাগুণ ঠিক রাখার জন্য ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখার জন্য এখানে মোটরচালিত যানবাহন চলাচল নিষিদ্ধ। শীতের সময়ে স্কিইং করার সময় ৩০০ কিলোমিটার ঢালে চলে যেতে পারে মানুষ।

২। জাংফ্রোজস

গ্রীষ্ম বা শীত উভয় ঋতুর জন্যই সুইজারল্যান্ড ভ্রমণের সবচেয়ে ভালো জায়গা গুলোর একটি জাংফ্রো অঞ্চল। এক বা দুই শতাব্দী আগেও দুঃসাহসী অভিযাত্রীরাই কেবল আল্পস পর্বতারোহণের জন্য যেত। বর্তমানে রেলপথের বিস্তৃত নেটওয়ার্ক, সুন্দর হাঁটার বা বাইকে চলার পথ বিভিন্ন ধরণের পর্যটকের জন্যই সহজগম্য। গ্রিন্ডেলওয়াল্ড, মুড়েন, লটারব্রুনেন এবং ওয়েঙ্গেন নামের ৪টি চিত্রানুগ শহর এবং ইগার, মনচ ও জাংফ্রু নামের নয়নাভিরাম ৩টি পর্বত নিয়ে জাংফ্রো অঞ্চল গঠিত। সুইজারল্যান্ডের সবচেয়ে আকর্ষণীয় রেল ভ্রমণ হল ক্লেইন স্কেইডেক পর্বত থেকে ইগার ও মনচ পর্বতের মধ্য দিয়ে জাংফ্রোজস পর্যন্ত যাওয়া।

৩। ইন্টারলাকেন

ইন্টারলাকেন ঘড়ি তৈরির কেন্দ্র হিসেবে পরিচিত হলেও বর্তমানে পর্যটন রিসোর্ট হিসেবেও জনপ্রিয়। ১৮০০শতকের গোড়ার দিকে পর্যটকেরা ইন্টারলাকেনে যেত পর্বতের নির্মল বায়ু সেবন ও স্পা ট্রিটমেন্টের জন্য। সুইজারল্যান্ডের ৩টি বিখ্যাত পর্বতের নয়নাভিরাম দৃশ্য উপভোগ করা ছাড়াও এটি আল্পস পর্বতের বেসক্যাম্প হিসেবেও জনপ্রিয়। যেসব পর্যটকরা ভিন্ন কিছু করতে চান তারা সেখানকার কাঠ খোদাই করা স্কুলে এক বা দুইটি ক্লাস করেন।

৪। লুসারণ

অনেক পর্যটকের জন্যই লুসারন হচ্ছে সুইজারল্যান্ডের সারভাগ। সুইজারল্যান্ডের কেন্দ্রীয় অংশের প্রবেশদ্বার হচ্ছে লুসারন। লেক লুসারনের ছবির মত সুন্দর দৃশ্যাবলী এবং এর নীচেই দেখা যায় আল্পসের চমৎকার দৃশ্য। চিত্রানুগ পুরনো এই শহরটি গাড়ী মুক্ত, এই শহরের মাঝখানে চিত্রাঙ্কন সম্বলিত আচ্ছাদনসহ একটি কাঠের তৈরি মধ্যযোগীয় সেতু আছে যা ইউরোপেরও সবচেয়ে প্রাচীন সেতু। এখানকার ঐতিহাসিক বাড়িগুলো দেয়াল চিত্রে সজানো থাকে এবং এখানে আছে চমৎকার টাউন স্কয়ার। এগুলো দেখার পর আপনি সহজেই বুঝতে পারবেন কেন লুসারন ভ্রমণ বিলাসী মানুষের কাছে সারা বছরই জনপ্রিয় থাকে।

৫। জেনেভা

আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংগঠনের সদর দপ্তর জেনেভায় অবস্থিত। আন্তর্জাতিক রেড ক্রস কমটি এবং জাতিসংঘের ইউরোপীয় সদর দপ্তর এখানে অবস্থিত। এছাড়াও আরো ২০ টি আন্তর্জাতিক সংগঠন আছে এখানে। পরিবেশবাদী পর্যটকদের জন্য জেনেভা আদর্শ স্থান। কারণ জেনেভা গ্রিন সিটি বা সবুজ শহর। এই শহরের ২০% জমি উদ্যানের জন্য উৎসর্গ করা হয়েছে। এজন্য একে পার্কের শহর ও বলা হয়। ইউরোপের সর্ববৃহৎ আল্পাইন হ্রদ হচ্ছে জেনেভা হ্রদ যা সুইজারল্যান্ড ও ফ্রান্সের সীমান্তবর্তী এলাকায় অবস্থিত।

৬। জুরিখ

সুইজারল্যান্ডের সবচেয়ে বড় শহর। এখানে ৫০টি যাদুঘর ও ১০০টি আর্ট গ্যালারি আছে। আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন সুইস ব্র্যান্ডের পণ্য কিনতে কিনতে ভ্রমণকারীরা যখন ক্লান্ত হয়ে যান তখন লেক জুরিখে নৌকা ভ্রমণে যেতে পারেন অথবা কাছাকাছি পাহাড়ে আরোহণ করতে পারেন। সুইজারল্যান্ডের সাংস্কৃতিক ইতিহাসকে উৎসর্গ করে নির্মিত রুপকথার দুর্গ “সুইস ন্যাশনাল মিউজিয়াম” দেখার কথা ভুললে চলবে না।

সুইজারল্যান্ড সম্পর্কে ১২টি তথ্য যা আপনার মন কেড়ে নেবে

নানা ধরনের প্রশ্নের উত্থাপন এবং জবাব দেওয়া নিয়ে সবাই মেতে থাকেন সোশাল মিডিয়া ‘কুয়োরা’তে। সেখানে একটি প্রশ্ন ছিল, ‘সুইজারল্যান্ডের মন মাতানো ১২টি বিষয় কী কী হতে পারে?’ এর সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য জবাবগুলো দেখে নিন।
১. যদি রাতে তুষারপাত হয় তবে এক রাতেই বাড়ির ছাদ ও রাস্তায় বরফের স্তূপ জমে যায়। এসব রাস্তায় গাড়ি চলাচল অসম্ভব হয়ে পড়ে। তবে চিন্তার কিছু নেই। কারণ সকাল ৮টা নাগাদ দেশের সব রাস্তা পরিষ্কার করে ফেলে কর্তৃপক্ষ।
২. যদি ভবিষ্যতে পারমাণবিক যুদ্ধ শুরু হয়, তবে মানুষদের নিরাপদ আশ্রয়ে নিতে যে বাঙ্কার তৈরি হয়েছে সেখানে দেশটির সব মানুষ এঁটে যাবে।
৩. যুদ্ধাবস্থা বিবেচনা করে এখানকার রাস্তা এমনভাবে তৈরি হয়েছে যে প্রয়োজনে রাস্তার বিভিন্ন স্তর এদিক ওদিক সরিয়ে প্রতিটি রাস্তাকে বিমানের রানওয়েতে পরিণত করা যাবে।
৪. সুইজারল্যান্ডের বিমানবাহিনীর পাইলটরা ট্রেনিংয়ের সময় কখনো সুপারসনিক গতিতে বিমান চালাতে পারেন না। কারণ, দেশটি এত ছোট যে এই গতিতে বিমান চালালে নিমিষেই তা অন্য দেশের আকাশে চলে যাবে। তবে সম্প্রতি তারা ফ্রান্সের আকাশ ব্যবহারের একটি চুক্তি করেছে।
৫. লুসানে শহরে ময়লা-আবর্জনা সংগ্রহের জন্য জনগণ যে ট্যাক্স দেয়, তা কমাতে এবং সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা করতে তাদের ময়লা ফেলার বিনকে উন্নত করা হয়েছে। এটি কিনতে হবে এবং কেনার সময়ই ট্যাক্স কেটে রাখা হবে। কাজেই আপনি যত বেশি বিন ব্যবহার করবেন তত বেশি ট্যাক্স দিতে হবে। আর বিন ব্যবহার না করে বাইরে ময়লা ফেললে বড় বিপদে পড়বেন।
৬. দেশের আকার ছোট হলেও এখানে চারটি অফিসিয়াল ভাষা রয়েছে। এগুলো হলো : জার্মান, ফ্রেঞ্চ, ইতালিয়ান এবং রোমান। সুইসরা যখন ইংরেজিতে কথা বলেন তখন তা বেশ মজার বিষয় হয়ে ওঠে। এদের জার্মান ভাষা প্রচলিত ক্ল্যাসিক জার্মান ভাষা থেকে ভিন্ন। একে বলা হয় ‘সুইস জার্মান’। তবে এই ভাষায় কিছু লেখা হয় না। কারণ লিখিত সুইস জার্মান কেউ বোঝেন না।
৭. এই দেশের চকোলেট নির্মাতারা এমন চকোলেট বানানোর চেষ্টায় রয়েছেন যাতে স্বর্ণ মিশ্রিত থাকবে। অর্থাৎ, খাওয়ার যোগ্য সোনা উদ্ভাবনের চেষ্টা করছেন তারা। তাদের দেশে চকোলেট কতটা অভিজাত হতে পারে?
৮. গোটা সুইজারল্যান্ডকে যদি বহির্বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন করার পরিকল্পনা করা হয়, তবে তা বাটন দাবানোর মাধ্যমেই সম্ভব। কারণ, এ দেশে প্রবেশের প্রতিটি পথ ও টানেলের মুখে স্টিলের টিউব দেওয়া রয়েছে যা সুইচ টিপলেই বন্ধ হয়ে যাবে। যুদ্ধের সময় বিবেচনা করে এ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এখানকার প্রতিটি ব্রিজে বোমের বক্স রয়েছে। রাস্তার প্রতিটি দিক নির্দেশকারী চিহ্ন সংবলিত সাইনবোর্ড একটি বোতামের চাপেই খুলে পড়ে যাবে।
৯. এ দেশের গাড়িগুলো সব সময় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হয়। গাড়ি পরিষ্কার না থাকলে একটি মামলা খেতে পারেন আপনি।
১০. বহু প্রতিষ্ঠান এমন কর্মীদের নিয়োগ দেয় যার প্রয়োজন হয় না। তাদের সমাজ স্বল্প বেকারত্বের হারকে আরো কমিয়ে আনতে সচেতন।
১১. এ দেশের মানুষরা গণপরিবহন নিয়ে বেজায় সন্তুষ্ট। বাস, ট্রেন, নৌকা, ক্যাবল কার ইত্যাদির ব্যবহার দিয়ে মাত্র একটি টিকিট দিয়ে দেশের যেকোনো প্রান্তে পৌঁছে যেতে পারবেন। মাত্র ২০ মিনিট পর পর যেকোনো স্থানে ট্রেন পাবেন।
১২. দুই বছর ধরে বেকার থাকলে ভাতা দেয় সরকার। এটা অনন্য দৃষ্টান্ত হলেও এতে সংযুক্ত রয়েছে চিত্তবিনোদনের জন্য ঘুরতে যাওয়া ইত্যাদির ভাতা।
এই ১২টি বিষয় দিয়ে দেশটির অনন্য বৈশিষ্ট্যের বর্ণনা না দেওয়া গেলেও এগুলোকে প্রথম সারিতে রাখা যায় অনায়াসে, জানায় কুয়োরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here