ব্যাংক ও বিপণিবিতানে ক্রমবর্ধমান অগ্নিঝুঁকি

0
254

ঢাকায় অবস্থিত বিভিন্ন ব্যাংকের ৯৪ শতাংশ শাখা অফিসেরই অগ্নিঝুঁকি মোকাবিলার সক্ষমতা নাই। জানা যায়, চলতি বত্সরের ৪ জানুয়ারি গুলশানের ডিএনসিসি মার্কেটে অগ্নিকাণ্ডের পর ফায়ার সার্ভিসের পক্ষ হইতে ঢাকাকে চারটি অঞ্চলে বিভক্ত করিয়া সব ধরনের স্থাপনা পরিদর্শনের উদ্যোগ নেওয়া হয়। সেই ধারাবাহিকতায় ফায়ার সার্ভিসের চারটি অঞ্চলের আটটি ইউনিট নগরীর বিভিন্ন ব্যাংকের ৬৯২টি শাখা পরিদর্শন করে। ইহার মধ্যে শুধু ৪৩টি শাখার অগ্নিঝুঁকি মোকাবিলার পর্যাপ্ত সক্ষমতা আছে। অবশিষ্ট ৬৪৯টি শাখার মধ্যে ঝুঁকিপূর্ণ তালিকায় রহিয়াছে ৪৭৬টি। আর খুবই ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় আছে ১৭৩টি ব্যাংক-শাখা।

শুধু ব্যাংকের এই শাখাগুলিই নহে, রাজধানীর ৯৬ শতাংশ বিপণিবিতানেই নাই যথাযথ অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা। ঢাকার সহস্রাধিক বিপণিবিতানের মধ্যে আগুন ধরিলে নিভানোর যথাযথ ব্যবস্থা আছে মাত্র ৪৬টিতে। উপরন্তু এইসব প্রতিষ্ঠানের কর্মীদেরও আগুন হইতে নিজেকে কিংবা প্রতিষ্ঠানকে রক্ষা করিবার মতো কোনো প্রশিক্ষণ নাই। শুধু ‘ফায়ার এক্সটিঙগুইশার’ (অগ্নিনির্বাপক যন্ত্র) রাখিবার ব্যবস্থাকেই অনেকেই অগ্নিনিরাপত্তা ব্যবস্থা বলিয়া মনে করিয়া থাকেন। ভবনের উচ্চতা, দোকান ও ক্রেতা-বিক্রেতা অনুপাতে কতগুলো অগ্নিনির্বাপক প্রয়োজন, সেই সম্পর্কেও অধিকাংশেরই ধারণা নাই। এই অগ্নিনির্বাপকগুলি আবার দোকানের সবাই ব্যবহারও করিতে পারেন না। ইহা ছাড়া অতিরিক্ত লোকসমাগম হয় যেইসব জায়গায়, সেইসব জায়গায় স্মোক/হিট ডিটেক্টর লাগানোর যেই শর্ত আছে সেইগুলিও মানা হয় না। অথচ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স হইতে দেশের গুরুত্বপূর্ণ মার্কেট, হাসপাতালসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা রাখিবার জন্য প্রায়শই তাগাদা দেওয়া হয়। বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, আগুন লাগিবার প্রথম পাঁচ মিনিট হইল বিপজ্জনক সময়। কেননা, প্রথম পাঁচ মিনিটের মধ্যে যদি আগুন নিভানো সম্ভব হয়, তবে বড় কোনো দুর্ঘটনা ঘটিবার আশঙ্কা থাকে না। আর এই পাঁচ মিনিটের কাজটি সংশ্লিষ্টদেরই করিতে হয়। এই ক্ষেত্রে ফায়ার ব্রিগেডের ওপর নির্ভর করা যায় না; কিন্তু বত্সরে দেশে গড়ে প্রায় ১৬ হাজার অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটিলেও খুব কম সংখ্যক মানুষকেই এই ধরনের সতর্কতা অবলম্বন করিতে দেখা যায়।

অগ্নিকাণ্ডজনিত দুর্ঘটনা যে কত ভয়াবহ হইতে পারে, আমাদের দেশেই ইহার অনেক দৃষ্টান্ত রহিয়াছে। ২০১২ সালে ঘটিয়া যাওয়া তাজরিন ফ্যাশন্সের ভয়াবহতার কথা নিশ্চয়ই আমরা এখনো ভুলিয়া যাই নাই। ব্যাপক আর্থিক ক্ষয়ক্ষতির পাশাপাশি এই দুর্ঘটনায় প্রাণ হারাইয়াছিল প্রায় ১১২ জন। তাই ভবিষ্যতে অনাকাঙ্ক্ষিত এইসব পরিস্থিতি হইতে উত্তরণের লক্ষ্যে সরকারি-বেসরকারি সকল স্তরেই প্রয়োজন সচেতনতা ও দায়িত্বশীলতা বৃদ্ধির। বিশেষ করিয়া ব্যাংকের ক্ষেত্রে এই ব্যাপারে অধিক সচেতন হওয়া জরুরি। কেননা, ব্যাংকের প্রতিটি শাখায়ই নিজস্ব কর্মী থাকে, কাস্টমার থাকে, জরুরি ডকুমেন্ট থাকে উপরন্তু কাস্টমারদের আমানত থাকে। তাই প্রতিটি ব্যাংকেরই ফায়ার সার্ভিসের নির্দেশনা মোতাবেক অগ্নিঝুঁকি মোকাবিলায় সক্ষমতা বাড়ানো উচিত। উপর্যুপরি তাগাদা সত্ত্বেও যেই সকল মার্কেট, স্থাপনা এবং বহুতল ভবনে পর্যাপ্ত অগ্নিনির্বাপক ব্যবস্থা রাখা হয় নাই কিংবা যাহারা বিষয়টি আমলে নেয় নাই, তাহাদের ব্যাপারে অবশ্যই কঠোর হইতে হইবে বৈকি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here