ভারতের রাজ্য নির্বাচন

0
291

বদরুদ্দীন উমর : ভারতের উত্তরপ্রদেশ, উত্তরাখণ্ড, পাঞ্জাব, গোয়া ও মণিপুরে সদ্য অনুষ্ঠিত রাজ্য নির্বাচনের ফলাফল ঘোষিত হয়েছে। উত্তরপ্রদেশ ভারতের সর্ববৃহৎ রাজ্য। সেখানে মোট আসন সংখ্যা ৪০৩। তার মধ্যে বিজেপি পেয়েছে ৩১২টি। উত্তরাখণ্ডে আসন সংখ্যা ৭০। তার মধ্যে বিজেপি পেয়েছে ৫৭টি। কাজেই এ দুটি রাজ্যে অর্থাৎ ভারতের উত্তরে প্রধান হিন্দিভাষী অঞ্চলে বিজেপি নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করেছে। পাঞ্জাবে ১১৭টি আসনের মধ্যে কংগ্রেস জিতেছে ৭৭টি আসনে। গোয়ায় ৪০ আসনের মধ্যে ১৮ আসনে জিতেছে কংগ্রেস। মণিপুরে ৬০ আসনের মধ্যে কংগ্রেস জিতেছে ২৮টি আসনে। তবে সেখানে বিজেপির ভোট সংখ্যা বেড়েছে। আগে যেখানে তারা কোনো আসন পায়নি এবার সেখানে তারা জয়লাভ করেছে ২১টি আসনে। যাই হোক, তিনটি রাজ্যে কংগ্রেস সব থেকে বেশি আসন পেলেও উত্তর ভারতে বিজেপির জয় নিয়েই ভারতে হুলস্থূল হচ্ছে। এ নির্বাচনকে সামগ্রিকভাবে বিজেপি বিশেষত নরেন্দ্র মোদির বিপুল বিজয় হিসেবেই দেখা হচ্ছে। বিশেষত এ কারণে যে, ৫০০ এবং ১০০০ টাকার নোট বাতিল নিয়ে ভারতে যে পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছিল এবং জনগণ তার ফলে যেভাবে বিপর্যস্ত হয়েছিল তার পরিপ্রেক্ষিতে সাধারণভাবে ধারণা করা হয়েছিল যে, জনগণের মধ্যে বিজেপির বিরুদ্ধে নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়ে নির্বাচনে তারা ক্ষতিগ্রস্ত হবে। এমনকি তাদের পরাজয় হবে। সেটা হয়নি।

এ ক্ষেত্রে যে বিষয়টি উল্লেখযোগ্য তা হলো, বিজেপি ক্ষমতায় থেকে উত্তরপ্রদেশ এবং উত্তরাখণ্ডে যে বিজয় লাভ করেছে, এটা নির্বাচন কমিশন বা পুলিশের কোনো ধরনের হস্তক্ষেপের কারণে হয়নি। নির্বাচন কমিশন সম্পূর্ণ নিরপেক্ষভাবেই নির্বাচন পরিচালনা করেছে। একমাত্র উত্তরপ্রদেশের মায়াবতী নির্বাচনে কিছু অনিয়মের কথা বললেও অন্য কেউই নির্বাচন কমিশনকে কোনোভাবে দোষারোপ করেনি। বিজেপির জয় যে রাজনৈতিক কারণে হয়েছে এ বিষয়ে সকলেই একমত। ২০১৪ সালে পার্লামেন্টারি নির্বাচনে উত্তরপ্রদেশে মোট ৮০ আসনের মধ্যে বিজেপি পেয়েছিল ৭৩ আসন। কাজেই এবারকার রাজ্য নির্বাচনে বিজেপির রাজনৈতিক অবস্থানের কোনো পরিবর্তন বা ৫০০ এবং ১০০০ টাকার নোট বাতিলের কারণে বিজেপি কোনোভাবেই সেখানে ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি।

বিজেপি একটি চরম সাম্প্রদায়িক রাজনৈতিক দল। তাছাড়া সাম্প্রদায়িকতার জিগিরের আড়ালে তারা ভারতের বড় পুঁজির স্বার্থেরই খেদমত করছে। এ বিষয়টি নিয়ে নির্বাচন প্রসঙ্গে কম কথাই বলা হয় ও শোনা যায়। আর একটি বিষয় হলো, নির্বাচনে বিজেপির নিকৃষ্টতম সাম্প্রদায়িক অবস্থান। উত্তরপ্রদেশে ২০ শতাংশ মানুষ মুসলমান। কিন্তু রাজ্য নির্বাচনে তারা একজন মুসলমানকেও মনোনয়ন দেয়নি। বিগত পার্লামেন্টারি নির্বাচনেও তাদের সেই অবস্থা ছিল। কোনো মুসলমানকেই তারা মনোনয়ন না দেওয়ায় তাদের নির্বাচিত ৭৭ জনের মধ্যে একজনও মুসলমান ছিল না। শুধু তাই নয়, সেখানে ২০ শতাংশ মুসলমান থাকলেও উত্তরপ্রদেশ থেকে একজন মুসলমানও ভারতের পার্লামেন্টে যেতে পারেননি! উত্তর প্রদেশের ইতিহাসে এটা ছিল এক অদৃষ্টপূর্ব ঘটনা। কিছু সংখ্যক দালাল মুসলমান বিজেপিতে যোগদান করলেও এবং দু’জন দালালকে তারা মন্ত্রী বানিয়ে রাখলেও এর মাধ্যমে তাদের চরম সাম্প্রদায়িক ও ফ্যাসিস্ট চরিত্র আড়াল করার কোনো চেষ্টাই তারা করেনি। তার প্রয়োজনও তারা বোধ করে না। নির্বাচন কমিশনের নিরপেক্ষতা ভারতের সংসদীয় গণতন্ত্রের একটা ইতিবাচক দিক হলেও নির্বাচনে সাম্প্রদায়িকতা যেভাবে ভারতের রাজনীতিতে তার থাবা বিস্তার করেছে, তার মধ্যে যে গণতন্ত্রের লেশমাত্র নেই_ এর থেকে বড় সত্য এ ক্ষেত্রে আর কী আছে?

১২ মার্চ দিলি্লতে বিজেপির হেডকোয়ার্টারে এক বক্তৃতায় নরেন্দ্র মোদি আস্ফালন করে বলেছেন, তারা এক ‘নতুন ভারতের’ উন্মোচন করেছেন! তারা দরিদ্র জনগণের স্বার্থে কাজ করার কারণেই তাদের এত বড় বিজয় হয়েছে! এসব যে কত বড় প্রতারণামূলক কথাবার্তা, সেটা বোঝার অসুবিধা নেই। নরেন্দ্র মোদি ‘নতুন ভারত’-এর যে আওয়াজ তুলেছেন, সেটা ভারতকে একটি ফ্যাসিবাদী রাষ্ট্রে পরিণত করারই আওয়াজ। তাদের এই ‘নতুন ভারতে’ তারা হিন্দুত্বের আওয়াজ তুলে মুসলমান, খ্রিস্টান ইত্যাদি ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের রাজনৈতিকভাবে উচ্ছেদ করারই চক্রান্তে নিযুক্ত আছেন। এই উদ্দেশ্যে তারা ২০১৪ সালে নির্বাচন জয়ের পরই ‘ঘর ওয়াপাসি’ বা ঘরে ফেরার আওয়াজ দিয়েছিলেন। তার অর্থ ছিল ভারতের সকলেই হিন্দু। হিন্দুদেরকেই মুসলমান, খ্রিস্টান ইত্যাদি করা হয়েছে জোর করে। কাজেই তাদেরকে আবার হিন্দুত্বের কাঠামোর মধ্যে ফেরত আনা দরকার। তাদের এই ‘ঘর ওয়াপাসি’ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করতে গিয়ে সারা ভারতে তারা যে বিরোধিতার সম্মুখীন হয়েছিল এবং বিজেপির বিরুদ্ধে যে সমালোচনার ঝড় উঠেছিল, তার ফলে শেষ পর্যন্ত তারা পিছু হটতে বাধ্য হয়।

এ ক্ষেত্রে তাদের আর একটি কর্মসূচি ছিল_ গরু জবাই বন্ধ। মুসলমান ও খ্রিস্টানদের জন্য গরু খাওয়া নিষিদ্ধকরণ। এ কাজ করতে গিয়ে তারা অনেক মুসলমান ও খ্রিস্টানকে হত্যা পর্যন্ত করেছে। কিন্তু তাদের এই গোহত্যা নিবারণ কর্মসূচি যে আসলে কত বড় ভণ্ডামি তা বোঝা যায় ভারত থেকে গরুর গোশত বিদেশে রফতানি করা থেকে। যেসব দেশ গরুর গোশত রফতানি করে, তাদের মধ্যে অন্যতম শীর্ষস্থানীয় হলো ভারত। এভাবে গরুর গোশত রফতানি করে তারা হাজার হাজার কোটি টাকা বৈদেশিক মুদ্রা উপার্জন করে। এ ছাড়া অন্য বিষয়ও আছে। ভারতের জুতা শিল্পের আকার বিশাল। ভারতে যারা জুতা ব্যবহার করেন, তাদের সংখ্যা কোটি কোটি। এই জুতা ভারতেই তৈরি হয় গরুর চামড়া দিয়ে। গরুর চামড়ার জুতা পরতে বিজেপি এবং তাদের সংঘ পরিবারের লোকদের, তাদের নেতা নরেন্দ্র মোদি, অমিত শাহদের কোনো অসুবিধা হয় না! তাদের ধর্ম নষ্ট হয় না! কাজেই একদিকে তারা ‘গোমাতা গোমাতা’ বলে হিন্দুত্ব দেখায়, কিন্তু গোমাতার চামড়ার জুতা পরতে তাদের অসুবিধা হয় না।

ভারতের বাজার ছাড়া বিদেশেও ভারত জুতা রফতানি করে থাকে। এই জুতা শিল্প ও জুতা ব্যবসা তারা চালিয়ে যাচ্ছে কোটি কোটি গরু হত্যা করে। কাজেই মুসলমান, খ্রিস্টানদের দলিতদের খাদ্য অধিকারের ওপর হিন্দুত্বের দোহাই দিয়ে তারা ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের ও সেই সঙ্গে গরুর গোশত খাওয়া দলিত ও নিম্নবর্ণের হিন্দুদের ওপর নির্যাতন সত্ত্বেও গরু হত্যা করে তারা নিজেরা শিল্প ব্যবসার জন্য যেভাবে গরু হত্যা করছে তাকে বিরাট ভণ্ডামি ছাড়া আর কী বলা যেতে পারে?

নরেন্দ্র মোদি তার ‘নতুন ভারত’ সম্পর্কে যে আওয়াজ তুলেছেন সে আওয়াজের ভিত্তি যে এক নিদারুণ ফ্যাসিস্ট শাসন কায়েমের আওয়াজ, এতে সন্দেহ নেই। তিনি বলেছেন, তারা গরিবদের স্বার্থে কাজ করছেন। গরিবরাই তাদেরকে ভোট দিয়েছে। এটা ঠিক যে, গরিবরা তাদেরকে অনেক ভোট দিয়েছে। কিন্তু এর দ্বারা গরিবদের প্রতি তাদের ভালোবাসা প্রমাণিত হয় না। প্রমাণিত হয় যে, ভারতে নির্বাচন কমিশনের নিরপেক্ষতা সত্ত্বেও তাদের সমগ্র সংসদীয় নির্বাচন ব্যবস্থা এমনভাবে পরিচালিত হয়, যাতে গরিবরা ভোট দিলেও রাজনৈতিক প্রতারণা এবং প্রচারকারীদের চরম গরিববিরোধী প্রচারের কারণে সে ব্যবস্থা একটা ফাঁকিবাজি ছাড়া আর কিছুই নয়। এর মধ্যে ভারতীয় রাজনৈতিক ব্যবস্থার চরম অগণতান্ত্রিক চরিত্রই প্রতিফলিত হয়।

সর্বশেষে জাতীয় ও রাজ্য নির্বাচন প্রসঙ্গে এটা বলা দরকার যে, সংসদীয় কমিউনিস্ট দলগুলো এখন ভোটের লড়াইয়ে চরমভাবে পিছু হটেছে বা পরাজিত হয়েছে। কমিউনিস্টদের কোনো প্রাসঙ্গিকতা কেরালা, পশ্চিমবঙ্গ ও ত্রিপুরা ছাড়া অন্য কোনো রাজ্যে নেই। পশ্চিমবঙ্গে তাদের একটা অবস্থান থাকলেও তারা এখন প্রায় অপ্রাসঙ্গিক হওয়ার পথে। বিগত দুই নির্বাচনে তাদের করুণ অবস্থার দিকে তাকালেই এটা বোঝা যায়।

পশ্চিমবঙ্গে তিরিশ বছরের ওপর ক্ষমতায় থাকার পর নিজেদের অনেক অপকর্মের কারণে জনগণের মধ্যে তাদের আর কোনো ভিত্তি নেই। তাদের এই দুরবস্থা যে তাদের বর্তমান নেতৃত্বের অধীনে পরিবর্তন হবে, এমন কোনো সম্ভাবনাও এখন দেখা যাচ্ছে না। তাদের কোনো কাজ এখন আর জনগণের মধ্যে নেই। জনগণের স্বার্থ নিয়ে তাদের কোনো আন্দোলন ও সাংগঠনিক তৎপরতাও নেই। তাদের কাজ বিধানসভা থেকে কংগ্রেসের সঙ্গে জোট বেঁধে ওয়াক আউট করা, তুচ্ছ সব বিষয় নিয়ে মমতার তৃণমূল ও বিজেপির সমালোচনার মধ্যেই সীমাবদ্ধ। অন্যদিকে মাওবাদী নামে পরিচিত দলগুলো সংসদীয় দলগুলোর মতো ভারতের সাংবিধানিক কাঠামোর মধ্যে ক্ষমতায় যাওয়ার চেষ্টা না করে নিজেদের ধারণা অনুযায়ী বিপ্লবী সংগ্রাম করছে। কিন্তু তাদের ধারণা সম্পূর্ণ ভ্রান্ত। তাত্তি্বক ও রাজনৈতিক দেউলিয়াপনার কারণে তারা নিজেদের প্রভাবিত এলাকায় তথাকথিত গেরিলা যুদ্ধের মাধ্যমে কিছু পুলিশ এবং আধা সামরিক বাহিনীর সদস্য হত্যা ছাড়া আর কিছুই করছে না। মাও সে তুং বলেছিলেন, জনগণ হলেন পানির মতো। সেই পানিতে মাছ যেমন সাঁতার কাটে, সেভাবে জনগণের মধ্যে থেকেই বিপ্লবী গেরিলারা লড়াই করে। কিন্তু ভারতের মাওবাদীরা জনগণের মধ্যে থেকে কোনো বিপ্লবী সংগ্রাম করছে না। নির্যাতিত কিছু জঙ্গলবাসী লোকদের মধ্যে কোনো কোনো জায়গায় নিজেদের একটা অবস্থান তৈরি করে তারা তাদের বিপ্লবী সংগ্রাম করছে। কৃষক এলাকা থেকেই নকশালবাড়ী আন্দোলন শুরু হয়েছিল। কিন্তু আজ ভারতের বিশাল কৃষক জনগণের মধ্যে তাদের কোনো কাজই প্রকৃতপক্ষে নেই। ভারতে শিল্প শ্রমিকদের আকার অতি বিশাল। তাদের মধ্যেও তাদের কোনো কাজ নেই। কাজেই এদিক দিয়ে দেখলে আশু ভবিষ্যতে তাদের বিপ্লবী সংগ্রাম যে ভারতের বুর্জোয়া রাষ্ট্র উচ্ছেদ করে, সেখানে কোনো সমাজতান্ত্রিক বা বিপ্লবী রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠা করবে এমন সম্ভাবনা নেই। এসব দিক বিচার করলে এটা বলা যায় যে, ভারতের গরিব ও শ্রমজীবী জনগণের অবস্থা এখন বড়ই কঠিন। যে রাষ্ট্র এখন তাদের জীবনকে অক্টোপাসের মতো নিজের কব্জায় আটকে রেখেছে তার থেকে মুক্তির কোনো আশু সম্ভাবনাই দেখা যাচ্ছে না।
সভাপতি, জাতীয় মুক্তি কাউন্সিল

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here