মনে পড়ে যায় সেই উত্তাল দিনগুলোর কথা

0
284

অধ্যাপক ড. কামাল উদ্দিন আহাম্মদ : ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে পাকিস্তানি হানাদার সেনারা যে বর্বর গণহত্যা চালিয়েছিল, সেই মৃত্যুর বিভীষিকা থেকে মাথা তুলে দাঁড়িয়েছিল দেশের মুক্তিপাগল বীরসন্তানরা। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশে অস্ত্র কাঁধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল রণাঙ্গনে। আনুষ্ঠানিক সূচনা ঘটেছিল বাঙালির সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের। ডাক এসেছিল দেশকে হানাদারের কবল থেকে মুক্ত করার। এই মার্চ মাস এলেই সেই উত্তাল দিনগুলোর কথা খুব মনে পড়ে যায়।

আমি দেখেছি কীভাবে রক্তস্নাত সংগ্রামের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ একটি স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে বিশ্বের বুকে মাথা তুলে দাঁড়িয়েছিল। ২৫ মার্চ রাতে ধানমণ্ডির ৩২ নম্বর বাড়িতে গ্রেপ্তার হওয়ার আগেই বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছিলেন। তাঁর ডাকে সাড়া দিয়ে নিরস্ত্র বাঙালিরা যেভাবে একটি সুশৃঙ্খল অত্যাধুনিক সমরাস্ত্রে সজ্জিত সামরিক বাহিনীর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছিল, পৃথিবীর ইতিহাসে তার দৃষ্টান্ত বিরল। মাঝরাতেই বাবা আফাজ উদ্দিন আহাম্মদ খবর পেয়েছেন বঙ্গবন্ধুকে গ্রেফতার করার পর পাকিস্তানি সেনাবাহিনী ট্যাঙ্ক নিয়ে হামলা চালিয়ে ঢাকায় অজস্র সাধারণ নাগরিক, ছাত্র, শিক্ষক, বুদ্ধিজীবী, বাঙালি পুলিশ হত্যা করেছে। আমরা তখন সবাই বিচলিত। বঙ্গবন্ধুকে গ্রেপ্তার করে পাক বাহিনী কী মেরে ফেলেছে নাকি বাঁচিয়ে রেখেছে— এ নিয়ে সবাই চিন্তিত। আমি তখন দেখেছি, আমার এলাকায় কুমিল্লা জেলার হোমনা উপজেলার বিজয় নগর গ্রামের লোকজন স্বাধীনতার চেয়ে তখন বঙ্গবন্ধুর প্রয়োজনীয়তাই বেশি অনুভব করেছিল। বঙ্গবন্ধুর জীবিত থাকার সংবাদ জেনে যেমন আশার আলো জ্বলে উঠেছিল, তেমনি তাঁকে যেন হত্যা করতে না পারে সেজন্য অনেককে রোজা রাখতেও দেখেছি।

বাংলাদেশ যে মুক্তিযুদ্ধের দিকে ধাবিত হবে, সে বোধ তৈরি হয়েছিল বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণের মধ্য দিয়ে। তাঁর ভাষণ শোনার পর কোনো বাঙালির মনেই আর দ্বিধা ছিল না। সেদিন থেকেই সারাদেশের মানুষ প্রস্তুতি নিতে থাকল স্বাধীনতার জন্য। সে ধারাবাহিকতায় ২৬ মার্চ বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণা তাই প্রত্যাশিত ছিল। সেদিন থেকে এ দেশের মুক্তিকামী মানুষ মৃত্যুভয় তুচ্ছ করে ‘জয় বাংলা’ স্লোগান তুলে বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে অংশ নিল মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে। পাকিস্তানের বিমাতাসুলভ আচরণ সম্পর্কে যাদের কখনো কোনো ধারণা ছিল না, গ্রামের সেই খেটে খাওয়া দিনমজুর কৃষকও স্বাধীনতার দাবিতে সোচ্চার হয়ে ওঠেছিল। যারা সরাসরি অস্ত্র হাতে যুদ্ধ করার সুযোগ পায়নি, তারা মুক্তিযোদ্ধাদের খাবার দিয়ে, আশ্রয় দিয়ে, বিভিন্ন তথ্য দিয়ে সাহায্য করেছিল।

কুমিল্লা জেলার হোমনা থানার মানুষের মাঝে সেদিন আমি স্বাধীনতার যে দৃঢ়তা ও শক্তি দেখেছি তা ভাষায় লিপিবদ্ধ করে প্রকাশ করা সম্ভব নয়। মার্চের ২৬ তারিখ গণহত্যা চালানোর মধ্য দিয়ে পাকিস্তানি হানাদাররা ঢাকার কর্তৃত্ব গ্রহণের পর সারাদেশে তাদের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠার কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়ে। একই কায়দায় তারা বড় বড় জেলা ও মহকুমায় প্রবেশ করতে থাকে। এর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলে মুক্তিযোদ্ধারা। জুলাইয়ের শেষদিকে হানাদার বাহিনী আমাদের এলাকার প্রবেশের চেষ্টা করলে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা সশস্ত্র আক্রমণ চালায়। আক্রমণে টিকতে না পেরে হানাদাররা দ্রুত মাছিমপুরের দিকে চলে যায়। পরে জগন্নাথকান্দি মাথাভাঙার হিন্দু জেলেপাড়ায় প্রবেশ করে নারী, পুরুষ ও শিশুসহ দেড় শতাধিক লোককে হত্যা করে। লাশগুলো নদীতে ভাসতে থাকে। মুসলিমপাড়ার দেলোয়ার মাস্টার মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিল। এ অপরাধে তার বাবা হোরা মিয়াকে (ডাক নাম) হানাদাররা গুলি করে মেরে ফেলে। জীবনরক্ষার্থে ট্রলারে করে বিক্রমপুর হতে ভারতে যাওয়ার পথে তারা দুশ নারী-পুরুষকে হত্যা করে।

১ অক্টোবর সকাল ১০টায় পাকসেনারা মিরশ্বিকারী ও ভবানীপুর গ্রামে বাড়িঘরে আগুন দিয়ে লুটপাট শুরু করলে ওপারচর গ্রাম থেকে মুক্তিযোদ্ধারা মর্টারশেল নিক্ষেপ করে। পাল্টা হামলায় হানাদাররা টিকতে না পেরে হোমনা থানায় ফিরে আসে। এর পরদিন রাতে ইব্রাহিম কমা্লারের নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধারা হোমনা থানা আক্রমণ করলে বাহের খোলার মুক্তিযোদ্ধা খোরশেদ এবং হারুন নিহত হন। ২ নভেম্বর হানাদাররা জয়পুর গ্রামে প্রবেশ করে ব্যাপক লুটপাট চালায় ও বাড়িঘর পোড়ায়। তারা গরু-ছাগল, হাঁসমুরগি জবাই করে খেয়ে বিকালের দিকে আবাইত্তা (তিতাস নদীর শাখা) নদী দিয়ে গানবোটের ছাদে উল্লাস করে ফিরে যাওয়ার পথে ইব্রাহিম কমা্লারের নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রবল প্রতিরোধের মুখে পড়ে। এতে অনেক হানাদার সেনা মৃত্যুবরণ করে। কিন্তু মুক্তিযোদ্ধাদের অনেকের গুলি শেষ হয়ে যায়। ফলে তাঁদের অবস্থান নাজুক হয়ে পড়ে। অসীম সাহসী মনিরের গুলি ছিল। একাই সাহসিকতার সঙ্গে পাকবাহিনীর সঙ্গে যুদ্ধ অব্যাহত রাখেন। এক পর্যায়ে মনির মাথা উঁচু করলে তাদের একটা গুলি তাঁর মুখের ভিতর দিয়ে মাথায় লাগে। সঙ্গে সঙ্গে সে মায়া যায়। দুই দিন যুদ্ধ চলে। দ্বিতীয় দিনে ঢাকা থেকে পাকিস্তানি গানবোট এসে তাদের জীবিত ও মৃত্যু সেনাদের নিয়ে যায়।

১৫ ডিসেম্বর ফজরের নামাজের পর বাঞ্ছারামপুরে অবস্থানরত চার শতাধিক হানাদার সেনা হোমনা থানার ঘাগুটিয়া গ্রামের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়-সংলগ্ন মসজিদের মধ্যে প্রবেশ করে বাংকারে শক্ত অবস্থান নেয়। এ খবর মুক্তিবাহিনী অবগত হলে দুই শতাধিক মুক্তিযোদ্ধা দুলালপুর চন্দ্রমনি উচ্চ বিদ্যালয়ে একত্রিত হয়ে পাক বাহিনীকে দুই দিক থেকে অতর্কিতে সাঁড়াশি আক্রমণ করে। সরাসরি যুদ্ধে পাথালিয়াকান্দির অলোক মিয়া শহীদ হন এবং ১৭ জন আহত হন। এর মধ্যে কমা্লার ইব্রাহিমের উরুতে গুলি লাগে। হানাদার বাহিনীর অনেকে নিহত ও আহত হয়। যার সঠিক সংখ্যা জানা যায়নি। কৌশলগত কারণে মুক্তিবাহিনী পিছিয়ে তিন দিক থেকে বাংকার করে পজিশন নিয়ে হানাদার বাহিনীকে অবরুদ্ধ করে রাখে। ১৮ ডিসেম্বর ময়নামতি ক্যান্টনমেন্ট থেকে মিত্র বাহিনীর তিন জন সেনা মুক্তিবাহিনীর সঙ্গে এসে হানাদার বাহিনীকে ওয়ারলেসের মাধ্যমে আত্মসমর্পণের আহ্বান জানান। হানাদার বাহিনী মিত্রবাহিনী হিসাবে তাদের বিশ্বাস করেনি। যার জন্য তারা আত্মসমর্পণে রাজি হয়নি। হানাদাররা মনে করেছিল মুক্তি বাহিনীর হাতে আত্মসমর্পণ করলে তাদেরকে মেরে ফেলা হবে।

২৩ ডিসেম্বর মিত্র বাহিনীর সদস্যরা পুনরায় তিনটি ট্যাঙ্ক নিয়ে আসে। হানাদার বাহিনীকে পুনরায় ওয়ারলেসের মাধ্যমে আত্মসমর্পণের আহ্বান জানান। হানাদার সেনারা এতেও রাজী না হওয়ায় মিত্রবাহিনী ট্যাঙ্ক থেকে গোলা বর্ষণসহ সরাসরি আক্রমণ করে। এ আক্রমণের কারণে হানাদার বাহিনীর বিশ্বাস জন্মে যে, তারা মিত্র বাহিনীর লোক। মিত্রবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণে সম্মত হয়ে তারা ঘাগুটিয়া গ্রাম থেকে বের হয়ে আসে। ১৮১ জন জীবিত ও আহত হানাদার সদস্য আত্মসমর্পণ করে। আত্মসমর্পণের পর মিত্র বাহিনী হানাদারদের ময়নামতি ক্যান্টনমেন্টে নিয়ে যায়। এরপর থেকে ২৩ ডিসেম্বরকে হোমনা মুক্ত দিবস হিসেবে উদযাপন করা হয়। উপজেলার চম্পক নগর, ঘাগুটিয়া, নিলখী বাজার, দুলাল বাজার, হোমনা সদর ও পঞ্চবটি প্রভৃতি জায়গায় সংঘটিত একাধিক লড়াইয়ে ২৩ জন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন এবং ২৪ জন আহত হন। তাছাড়া হানাদার বাহিনী বর্তমান হোমনা ডিগ্রি কলেজের পাশে বহুসংখ্যক নারী, পুরুষ ও শিশুকে জীবন্ত কবর দেয়। গনেশনাথের পুকুর পাড়ে কারো হাত, কারো মাথার খুলি মাটির নিচ থেকে বের হয়েছিল বহুদিন। এ স্থানটি বধ্যভূমি হিসেবে বিবেচনা করে স্মৃতিস্তম্ভ করা দরকার। মুক্তিযুদ্ধের সময় আমার মা ভাত, মাংস, ডাল প্রভৃতি রান্না করে দিলে আমরা এ খাবার মাথায় করে ৪ মাইল দূরে ঘারমোড়া মুক্তিযোদ্ধাদের ক্যাম্পে পৌঁছে দিতাম।

একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ শুধু বাংলাদেশের ইতিহাসে নয়, বিশ্বেও ছিল সাড়া জাগানো একটি ঘটনা। শুধু মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জিত হয়নি। এ জন্য দীর্ঘদিন আন্দোলন-সংগ্রাম করতে হয়েছে। বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের দীর্ঘ এ পথপরিক্রমায় বঙ্গবন্ধু দুঃসাহসিক ভূমিকা পালন করেন। মৃত্যুকে তুচ্ছ ভেবে তিনি এগিয়ে গেছেন অবিচল চিত্তে। এ জন্যই তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতার প্রাণপুরুষ। লাল-সবুজের পতাকায় তিনি হয়ে আছেন চিরস্মরণীয়।

হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে স্বাধীনতা লাভ ও বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার মৌলিক ধারণা ছিল ধর্মনিরপেক্ষতা, অর্থনৈতিক মুক্তি, শোষণহীন সমাজ গঠন ও গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠা। যে নীতি অনুসরণ করে তাঁর সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এগিয়ে চলছেন। নতুন প্রজন্মকে বলছি, বৈষম্যহীন সমাজ গঠনের সকল উপাদান রয়েছে আমাদের সংবিধানে। শুধু সঠিকভাবে অনুধাবনের মাধ্যমে আমাদেরকে একটি বৈষম্যহীন শান্তিপূর্ণ সমাজ গঠন করতে হবে।

লেখক :ভাইস-চ্যান্সেলর, শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here