মানবিকতাই যেখানে বড়

0
219

দুটি মহাযুদ্ধের ক্ষত বহনকারী এই পৃথিবীর বুকে এখনও যুদ্ধের বিভীষিকা ও আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করে মানবতাবিরোধী অপরাধ ঘটে চলেছে। সিরিয়া, ইরাক ও ইয়েমেনে যুদ্ধ, গৃহযুদ্ধ ও সন্ত্রাসের এক তালগোল পাকানো জটিলতা। বিভিন্ন যুদ্ধের খবর সংগ্রহকালে সাংবাদিকদের তোলা কিছু অসাধারণ ছবি ঐতিহাসিক হয়ে রয়েছে, যেগুলো বিশ্ববিবেককে নাড়া দিয়েছে। গত শতাব্দীতে ভিয়েতনামে পলায়নপর নাপামদগ্ধ নগ্ন কিশোরী, অতি সম্প্রতি ভূমধ্যসাগরের তুরস্ক উপকূলে উপুড় হয়ে পড়ে থাকা মৃত শিশু আইলান বা আলেপ্পোর বোমাবিধ্বস্ত ভবনে ধূলিমাখা রক্তাক্ত নির্বাক শিশু ওমরান দাগনিশ প্রভৃতি মানবতার অপমানের চিরকালীন স্থিরচিত্র। এখন প্রযুক্তির উন্নতির ফলে প্রতিটি মুহূর্তই রেকর্ড হয়ে থাকছে। ছবিগুলো ইউরোপের শরণার্থী নীতি প্রভাবিত করতে সহায়ক হয়েছে, যুদ্ধাপরাধীদের বিচারেও সাক্ষ্য হবে। এটি সাংবাদিকদের কাজের গুরুত্বের আরেকটি মাত্রা।
মারাত্মক অপরাধ, সন্ত্রাস, যুদ্ধ প্রভৃতি পরিস্থিতিতে ফটোসাংবাদিকরা যে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে জনগণকে তথ্য জানান, সে কাজে একটি নৈতিক প্রশ্ন অলোচিত হয়। তা হলো, কোনো মানুষকে মৃত্যুর মুখে দেখলে প্রথম দায়িত্ব কি ছবি তোলা, না বিপন্নকে বাঁচানো? সংবাদ সংগ্রহের পেশা, না মানবিক দায়িত্ব- কোনটা গুরুত্বপূর্ণ? গত শনিবার আলেপ্পোর কাছে এক ঘটনায় সিরীয় ফটোগ্রাফার আবদেল কাদের হাবাক ক্যামেরা রেখে আহত শিশুদের বাঁচাতে ঝাঁপিয়ে পড়েন এবং একটি সাত বছরের বালককে কোলে নিয়ে দৌড়ে অ্যাম্বুলেন্সে তুলে দিয়ে পরমুহূর্তেই অনেক ছবি তোলেন। ওই কঠিন মুহূর্তে তার হৃদয় বলেছে, মানবিক কর্তব্যই প্রধান। একটি অবরুদ্ধ গ্রাম থেকে বেসামরিক নাগরিকদের উদ্ধার করে নিয়ে আসার সময় বাসের বহরে সন্ত্রাসী বোমা হামলায় ৬৮টি শিশুসহ ১২৭ জনের মৃত্যু হয়। হাবাক নিজেও বোমার আঘাত থেকে অল্পের জন্য বেঁচে যান। লণ্ডভণ্ড অবস্থার মধ্যে শিশুসহ অনেক হতাহত। শ্বাস রয়েছে দেখে একটি শিশুকে উদ্ধারের পর দৌড়ে কাছে গিয়ে আরও দুই শিশুকে মৃত পান। হাবাকের সেই মুহূর্তগুলোর ছবি মোহাম্মদ আল রাগেব নামের অপর ফটোসাংবাদিক তুলে রেখে এক মহান দায়িত্ব পালন করেছেন। বিশ্বের টিভি মাধ্যম ও সামাজিক গণমাধ্যমে কোটি কোটি মানুষ তা দেখল। অতুলনীয় মানবিক সাহসিকতা ও দায়িত্ব পালনের জন্য এই দুই সাংবাদিককে আমাদের অভিবাদন।
আমরা স্মরণ করতে পারি, ১৯৯৩ সালে সুদানের গৃহযুদ্ধ ও দুর্ভিক্ষের সময় প্রখ্যাত দক্ষিণ আফ্রিকান ফটোসাংবাদিক কেভিন কার্টার একটি ছবির জন্য পুলিৎজার পুরস্কার পেয়েছিলেন। কিন্তু তাকে ও পুলিৎজার কর্তৃপক্ষ উভয়কে সমালোচনার মুখে পড়তে হয়। জাতিসংঘের ত্রাণবাহী বিমানে গিয়েছিলেন সাংবাদিকরা। ছবিটিতে দেখা যায়, হাড্ডিচর্মসার একটি শিশু পথে নুয়ে পড়ে আছে ও নিকটে একটি শকুন লোলুপদৃষ্টিতে চেয়ে বসে আছে যেন শিশুটির মৃত্যুর অপেক্ষায়। ফটোসাংবাদিক ২০ মিনিট অপেক্ষা করে সন্তর্পণে মৃত্যুপথযাত্রী শিশু ও শকুনটিকে একত্রে ফ্রেমে ধরে ছবিটি তুলেছিলেন। তিনি ছবিটি নিউইয়র্ক টাইমসের কাছে বিক্রি করেন ও ছাপা হলে সে বছর পুরস্কার পান। দুঃখের বিষয়, মাত্র ১৬ মাস পরে এই ফটোসাংবাদিক মাত্র ৩৩ বছর বয়সে আত্মহত্যা করেছিলেন। তার সুইসাইড নোটে তিনি জীবনের যন্ত্রণা জীবনের আনন্দকে ছাপিয়ে যাওয়া সহ্য করতে না পারার কথা লেখেন। লেখেন হত্যা, শবদেহের স্তূপ, বন্দুক হাতে ঘাতকদের উন্মত্ততার জ্বালাময় স্মৃতি তাড়া করার কথা।
কেভিন কার্টারের ছবিও সুদানের দুর্ভিক্ষপীড়িত মানুষের প্রতি মানবিক সাড়া দিতে বিশ্ববিবেককে আহ্বান করেছে। পুরস্কৃত হয়েও তিনি সমালোচিত আর হাবাক একদিনেই বিশ্ববাসীর চোখে বীর হয়ে গেছেন। উভয়েই দায়িত্বশীল এবং সাধারণ মানুষের প্রতিক্রিয়া বলছে, মানবিকতাই সবকিছুর ঊধর্ে্ব।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here