মানসিক দারিদ্র্য ঘোচাতে হবে

0
331

স্বপ্না রেজা : দারিদ্র্যের বহুমুখী অভিঘাতে বিপন্ন নগরের বস্তিবাসী তরুণ-যুবকেরা। প্রথমেই আসি শিক্ষা বিষয়ে। জাতীয় নীতিমালায় সকলের জন্য শিক্ষা—এই বুলি মুদ্রিত থাকলেও, বাস্তবায়নের পদ্ধতি ও ব্যবস্থাপনায় তা একটি ‘ধোঁকা’ ছাড়া কিছুই নয়। কারণ, সকল বলতে আমরা যে গোষ্ঠীকে বুঝিয়েছি, বুঝেছি, তাতে বস্তিবাসী দরিদ্ররা নেই। আমাদের বিদ্যমান যে শিক্ষার পরিবেশ, কারিকুলাম, ব্যবস্থাপনা তা পুরোটাই রীতিমতো বাণিজ্যমুখী এবং বিত্তবান ও সামর্থ্যবানদের জন্য প্রযোজ্য। বেঁচে থাকবার কঠিন সংগ্রামে লিপ্ত নগর দরিদ্রদের তাতে সম্পৃক্ত হবার আর্থিক সংগতি যেমন নেই, নেই সেই সামাজিক অবস্থানও। দরিদ্র কিশোর-যুবকেরা মেধা নিয়ে জন্মালেও পিইসি, জেএসসি, এসএসসি, এইচএসসি-এর মতো পাবলিক পরীক্ষায় জিপিএ ৫ পাবার কোচিং প্রতিযোগিতার কারণে তারা পিছিয়ে পড়ছে। নীতিনির্ধারকগণ এক্ষেত্রে যেন ইচ্ছাকৃত বধিরতায় ভুগছেন। শিক্ষার সুযোগ সকলে পাচ্ছে কিনা তা দেখার জন্য উপযুক্ত মনিটরিং সেল যেমন নেই, তেমনি নেই নৈতিক দায়বোধ। ফলে মূলধারার শিক্ষার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে দরিদ্র শিশু-কিশোর-যুবক।

ব্যতিক্রম ঘটনাও আছে। এই শিক্ষার সুযোগ বঞ্চনার মধ্যেও আমরা দেখি, মেধা এবং নিজের ও দরিদ্র মা-বাবার অদম্য ইচ্ছাশক্তিতে দরিদ্র মেধাবী সন্তানদের বিভিন্ন পাবলিক পরীক্ষায় অভাবনীয় সাফল্য। কোচিং সেন্টারে গিয়ে বাড়তি জ্ঞান অর্জনের আর্থিক সংগতি না থাকলেও, অধিক সুযোগ প্রাপ্ত সন্তানদের মতন পাবলিক পরীক্ষায় কৃতকার্য হয়েছে, অনেক ক্ষেত্রে তাদের চাইতেও ভালো ফলাফল করেছে। এদের সংখ্যা হাতে গোনা হলেও একটি সত্য প্রতিষ্ঠিত হয়েছে, দরিদ্র হলেও এরা মেধাবী। চিরন্তন সত্য হল, দুর্ঘটনা ছাড়া প্রতিটি শিশুই কমবেশি বুদ্ধি নিয়ে ভূমিষ্ঠ হয়, উপযুক্ত পরিবেশ, অনুশীলন, চর্চা, ব্যবস্থা ইত্যাদি সুযোগের মধ্য দিয়ে সেই বুদ্ধি বিকশিত হয় এবং এক পর্যায়ে তা মেধায় রূপান্তরিত হয়। কাজেই যারা ভেবে বসে আছেন বা থাকেন দরিদ্র সন্তানদের শিক্ষা নিয়ে ভাবনাটাকে গুরুত্ব দেওয়ার প্রয়োজন বোধ করেন না, তারাই মূলত মানসিক দরিদ্রতায় ভুগছেন। তাদের এই মানসিক দারিদ্র্যই আমাদের দেশের দারিদ্র্যের অন্যতম প্রধান কারণ।

ষাট দশকের বাস্তবতায় শুরু দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য উপনুষ্ঠানিক শিক্ষাকার্যক্রম ও সাক্ষরতা কার্যক্রম। যা আজও চলমান। মূলধারার শিক্ষা থেকে দরিদ্র শিশুদের পৃথক করে রাখার একটি কৌশল এই উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রম। কেন দরিদ্র শিশু-কিশোররা আর ১০টি শিশু-কিশোরের মতো মূলধারার প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষার সুযোগ সরাসরি ও সহজে পাবে না? কেন আমরা বস্তির দরিদ্র পরিবেশে উপানুষ্ঠানিক শিক্ষাকার্যক্রম পরিচালনা করে শিক্ষা অর্জনে তাদের সীমা নির্ধারণ করে দিয়েছি? এটা কি আমাদের মানসিক স্বস্তি, দরিদ্র শিশু-কিশোররা ন্যূনতম শিক্ষাটুকু অন্তত পাক? নাকি আমরা খুব সুকৌশলে চাইছি, একজন রিকশাচালকের সন্তান রিকশাচালকই হোক কিংবা একজন দিনমুজুরের সন্তান দিনমুজুরই হোক? হয়ত কেউ বলবেন, উপানুষ্ঠানিক শিক্ষার পর মূলধারার শিক্ষায় তাকে নিতে হবে। কঠিন বিষয়। মূলধারার শিক্ষায় অন্তর্ভুক্তির সুযোগ খুবই নগণ্য। তার আগেই অনেক শিশু ঝরে পড়ে। শিশুশ্রমে নিয়োজিত হয়। ঝরে পড়া শিক্ষার্থীদের মাঝে ৯০% হতদরিদ্র শ্রেণির।

শিক্ষার মতো গুরুত্বপূর্ণ একটি সুযোগ থেকে বঞ্চিত হওয়া মানে মানসিকভাবে পরিপূর্ণ বিকশিত হবার পথে বাধাগ্রস্ত হওয়া। ফলে ভালো-মন্দ বাছবিচারের বোধটুকু অধিকাংশ ক্ষেত্রে কোনো কোনো দরিদ্র কিশোর-যুবকদের ভেতর জেগে ওঠে না বা উঠতে পারে না। খুব সহজেই তারা নগরের অন্ধকার জগতে প্রবেশ করে, অপরাধের সাথে যুক্ত হয়। মাদক সেবন, ছিনতাই, হত্যাকাণ্ড ইত্যাদি অপরাধের সাথে এরা জড়িয়ে যায়। এদেরকে আবার ব্যবহার করতে তত্পর হয়ে ওঠে নগরের অপরাধ জগতের রাঘব-বোয়ালরা। অন্ধকার জগতের গডফাদাররা। কোনো কোনো ক্ষেত্রে রাজনৈতিক স্বার্থ হাসিলেও এদেরকে অর্থের প্রলোভনে ব্যবহার করা হয়। ফলে দরিদ্র কিশোর-যুবকদের নাগরিক ও সামাজিক নিরাপত্তা বলতে কিছুই থাকে না। বরং এরা অনিরাপদ জীবন অতিবাহিত করছে এবং অন্যকেও অনিরাপদ করে রাখছে।

আবার কিশোর অপরাধ সংশোধন কেন্দ্র আছে। যা নেই, তা হলো আজ অব্দি কিশোর অপরাধীর সঠিক পরিসংখ্যান এবং অপরাধে কিশোররা যাতে লিপ্ত হতে না পারে, রাষ্ট্রীয়ভাবে তার সঠিক, সত্ ও স্বচ্ছ উদ্যোগ।সঠিক পরিসংখ্যান না হলে সঠিক পরিকল্পনা গ্রহণ সম্ভব নয়।

একটি নগরকে নিরাপদ রাখতে হলে, সেই নগরেরর কিশোর-যুবকেরা যাতে বিপথে না যেতে পারে, সেই ব্যবস্থা গ্রহণ জরুরি। বন্দুকের গুলি ছোঁড়ার চাইতে, বন্দুকের গুলি যাতে ছুঁড়তে না হয়, সেই কাজটি করা উত্তম। এতে জাতি উপকৃত হয়, উন্নত হয়। আমরা যদি নগরের কিশোর-দরিদ্রদের কথা গুরুত্বসহকারে না ভাবি, তাহলে তাদের জীবনই কেবল অরক্ষিত হবে না, গোটা নগর অনিরাপত্তার ঝুঁকিতে পড়ে যাবে এবং যাচ্ছেও তাই।

পরিশেষে বলব, নগরের উন্নয়নের জন্য ইতোমধ্যে ঢাকা শহরকে দুটি সিটি করপোরেশনে ভাগ করা হয়েছে। দু’জন মেয়র ৪০ লক্ষ বস্তিবাসীর ভোটে নির্বাচিত হয়ে, ইতোমধ্যে দু’বছর সময় পার করেছেন। বড়সড় অনুষ্ঠান আয়োজনের মধ্য দিয়ে তারা কে কী করেছেন, বলেছেন। আমরা প্রচারমাধ্যমে তা দেখেছি। রাষ্ট্রের উঁচুস্তরের ক্ষমতাধর, প্রভাবশালী লোকদের অংশগ্রহণে আয়োজিত এসব অনুষ্ঠানে তারা বলেছেন, তারা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করেছেন, হকার উচ্ছেদ করেছেন, নগর পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করেছেন, নিরাপত্তার জন্য অভিজাত এলাকায় সিসিটিভি ক্যামেরা লাগিয়েছেন ইত্যাদি ইত্যাদি। এই অনুষ্ঠানে তারা বলতে পারেননি, হয়ত বলার ছিল না বলেই বলেননি যে ৪০ লাখ বস্তিবাসীর জন্য তারা দু’বছরে কী করেছেন, দরিদ্র তরুণ-যুবকের জন্য কী করেছেন। আর সম্ভবত সেকারণেই এই অনুষ্ঠানে কোনো তৃণমূল প্রতিনিধি আমন্ত্রিত হননি। আমরা আশা করব, আগামী দু’বছর পর তারা যেন বলতে পারেন, নগরের দরিদ্র তরুণ-যুবকদের তারা শিক্ষায় সুসজ্জিত করে একটি সুন্দর নগর জাতিকে উপহার দিয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here