যশোরের নাভারন বানিজ্যিক ভাবে শুরু হয়েছে বেদানা চাষ

0
761

আরিফুজ্জামান আরিফ,বাগআঁচড়া :  যশোরের নাভারন কুলপালা গ্রামে বানিজ্যিক ভাবে শুরু হয়েছে বেদানা চাষ দেশীয় বাজারে ব্যাপক চাহিদা থাকার কারনে গ্রামের সৌখিন চাষী জাহাঙ্গীর আলম এই ফল আবাদ বানিজ্যিক ভাবে চাষ শুরু করেছেন। নিজে সফলতা অর্জনের পর বেদানা চাষের প্রসার বৃদ্ধি করতে এ ফল চাষের পাশাপাশি  এখন গাছের চারা ও কলম বিক্রিরও সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।
বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাংলাদেশের আবহাওয়াতেও বেদানা চাষ সম্ভব। মূলতঃ বীজ ও কলম থেকেই জন্ম নেয় বেদানা গাছ।
জাহাঙ্গীর আলম জানান,২০১৩ সালে দিনাজপুর থেকে চারা সংগ্রহ করে ২ বিঘা জমিতে ২শ ৭৭টি চারা রোপন করেন। প্রতিটি চারা ১২০ টাকা দরে ক্রয় করে চাষ শুরু করে এবং ২ বিঘা জমিতে প্রায় ৪০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। এখন বিশাল আকৃতির ঝাড়ে রুপান্তরিত হয়েছে বেদানা গাছের। ফুল ও ফল ধরেছে প্রচুর । দেখলে চোখ ফেরানো ভার।জুড়িয়ে যাচ্ছে মন প্রান।সাধারনত বর্ষা মৌসুমের শুরুতে এ গাছের চারা রোপন করতে হয় বলে তিনি জানান।চারা রোপনের দেড় থেকে দু’ বছর পর বেদানার ফলন আসতে শুরু হয়।বেদানা গাছ দেখতে সবুজ অনেকটা পাতা বাহার ফুল গাছের মত। তবে একটি গাছ ৬/৭ ফুট পর্যন্ত লম্বা হয়। চলতি মৌসুমে তার জমিতে লাগানো প্রতিটি গাছের কান্ড থেকে বিপুল পরিমান ফুলও ফল ধরেছে। দু’ধরনের জাতের বেদানা উৎপাদন হয়েছে তার জমিতে। একটা জাত সাদা আর একটা হচ্ছে গাঢ় লাল। এর মধ্যে বিশ্বের সর্বত্র লাল রঙের বেদানার কদর বেশি।
তিনি আরো জানায়,বর্তমানে গাছ থেকে বেদানা সংগ্রহ করে ২শ’ থেকে ২৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করছে বাজারে। এতে সে আর্থিক ভাবে ব্যাপক সফলতা পেয়েছেন।পাশাপাশি বাজারে এ বেদানার কদরও বেশী। তার দেখে গ্রামের অনেকে ঝুকে পড়েছে এ বেদানা চাষের দিকে।বেদানা চাষের প্রসার বৃদ্ধি করতে এ বছর তার জমিত লাগানো বেদানা গাছ থেকে প্রায় দেড় হাজার গুটি কলম প্রায় ২ লাখ টাকায় বিক্রির সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি।
শার্শা উপজেলা কৃষি অফিসার হিরক কুমার সরকার জানান, বাংলাদেশের আবহাওয়াতেও বেদানা চাষ করা উপযোগী ও সম্ভব। পাশাপাশি সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা পেলে বানিজ্যকভাবে এই চাষ বৃদ্ধি করে আমদানি নির্ভরতা কমিয়ে দেশের প্রয়োজন মেটানো সম্ভব।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here