যশোরে ছাত্রলীগ নেতা ইমন হত্যা কান্ডের গত ৩ দিনে মামলা হয়নি প্রতিবাদের ঝড় চলছে

0
286

বিশেষ প্রতিনিধি : জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি মনোয়ার হোসেন ইমন হত্যার ঘটনায় পুলিশ গত ৩ দিনে খুনী কাউকে সনাক্ত কিংবা গ্রেফতার করতে পারেনি।
প্রকৃত খুনীকে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবি করে মঙ্গলবার ও রাজপথ প্রকম্পিত করেছে জেলা ছাত্রলীগ ও তার অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা। প্রতিবাদ কারীরা ছাত্রলীগ নেতা ইমনকে কেন খুন হতে হলো তার জবাব চেয়েছে।
গত শনিবার ২৮ অক্টোবর রাতে বাড়ির অদুরে বেজপাড়া গুড়গোল্লার মোড়ে সালাম ফার্নিচার নামক দোকানের সামনে সন্ত্রীদের গুলিতে নিহত হন জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি মনোয়ার হোসেন ইমন। হত্যাকান্ডের ঘটনায় গোটা যশোর জেলায় প্রতিবাদের ঝড় ওঠে। হত্যাকান্ডের নেপত্যে স্থানীয় লোকজন নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন, ইমন শান্ত স্বভাবের ছেলে। সামাজিক কাজের সাথে তিনি যুক্ত। মাদক বিরোধী কাজে তিনি বেশ সক্রিয় ছিলেন। এমন কোন শত্রুতা বা কার্যকলাপের সাথে তিনি নিজেকে জড়াননি যে খুন হতে হবে। তবে ঘুরেফিরে উঠে আসে বেজপাড়া এলাকার চিহ্নিত কয়েক সন্ত্রাসী এবং মাদক কারবারীর নাম। কিছুদিন আগে পুলিশ ওই এলাকা থেকে কয়েক মাদক বিক্রেতাকে আটক করে। মাদক সিন্ডিকেটের ধারনা ওই আটকের পেছনে ইমনের হাত থাকতে পারে। যে কারণে খুন হতে হলো তাকে। আবার অনেকের মত-অতিসম্প্রতি তিনি গ্রুপিংএর রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন। পক্ষত্যাগ করে নতুন স্থান বেছে নেয়ার কারণে তিনি খুন হতে পারেন। কিন্তু তারও কোন আলামত দৃশ্যত হয়নি। ইমন সম্প্রতি ব্যবসা করার জন্য উদ্যোগি হন। সে কারণে তিনি টাকা জোগাড় করার জন্য ব্যাতিব্যস্ত থাকতেন। প্রতিদ্বন্দ্বী ব্যবসায়ী গড়ে উঠার আগে তাকে খুন করা হতে পারে কি-না তা খতিয়ে দেয়ার দাবি উঠেছে। তবে বেশিরভাগ মানুষের দাবি-এই হত্যাটি নিয়ে যেন কোন রাজনীতি না হয়। তাহলে একজন ভাল ছেলের খুনের বিচার পাবেনা তার স্বজন। সব আলোচনাই চলছে ধারনার ওপর। প্রকৃত ঘটনা তখনই জানাযাবে;পুলিশ যখন কোন আসামি আটক করতে পারবে।
তবে দুইদিন পার হলেও পুলিশ কাউকে আটক না করতে পারায় অনেকে হতাশা ব্যক্ত করেছেন। যদিও কোন মামলা হয়নি থানায়। জেলা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ইমন হত্যাকারী আটক এবং দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির দাবি জানিয়ে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে। এই বিষয়ে কোতয়ালি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল বাশার মিয়া সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, মঙ্গলবার রাতে ইমনের পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় এজাহার দেয়ার কথা রয়েছে। কিন্তু রাত সাড়ে ৭টা পর্যন্ত কোন মামলা হয়নি। আর কোন আসামি আটক করা যায়নি। ইমন হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে মঙ্গলবার বিকেলে জেলা ছাত্রলীগ যুবলীগ শহরের চৌরাস্তা মোড় ও দড়াটানা এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিল থেকে ইমন হত্যাকান্ডে প্রকৃত আসামী গ্রেফতারের জোর দাবি করা হয়।#

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here