যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারে সন্ত্রাসী বাধায় দরপত্র জমা দিতে পারিনি সাধারণ ঠিকাদাররা

0
432

বিশেষ প্রতিনিধি : ভাড়া করা সন্ত্রাসীদের বাঁধার কারণে যশোর কেন্দ্রীয় কারা কর্তৃপক্ষের আহবানকৃত খাদ্যদ্রব্য সরবরাহের দরপত্র দাখিল করতে পারেনি সাধারণ ঠিকাদাররা । ভাড়া করা সন্ত্রাসীদের সশস্ত্র মহড়া ও হুমকির কারণে সাধারণ ঠিকাদাররা দরপত্র দাখিল করতে সাহস পায়নি বলে অভিযোগ উঠেছে। একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেড কেন্দ্রীয় কারাগারের সব কাজের টেন্ডার জবর দখল করে নিচ্ছে বলে সাধারণ ঠিকাদারগন নাম প্রকাশ না করার শর্তে অভিযোগ করেছেন।
সাধারণ ঠিকাদাররা অভিযোগ করেন, গতকাল বুধবার ২২ নভেম্বর ছিল যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারের খাদ্যদ্রব্য সরবরাহের পাঁচ গ্রুপ কাজের দরপত্র জমা দেয়ার শেষ দিন। কারাগার সূত্র জানিয়েছেন,গত ১৩ অক্টোবর পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারের খাদ্যদ্রব্য সরবরাহের দরপত্র আহবান করা হয়। ১৯ অক্টোবর থেকে সিডিউল প্রতি ৭৫০ টাকা দরে বিক্রি শুরু হয়। গত পরশু মঙ্গলবার ২১ নভেম্বর পর্যন্ত ৩৯ টি সিডিউল বিক্রি হয়।গতকাল ২২ নভেম্বর বুধবার দরপত্র জমা কার্যক্রম শুরু হয় সকাল ৯ টা থেকে বেলা ১২ টা পর্যন্ত। এই সময়ের মধ্যে মাত্র ৫টি দরপত্র জমা পড়েন। সূত্রগুলো জানিয়েছেন, সাধারণ ঠিকাদাররা দরপত্র জমা দিতে গেলে চিহ্নিত টেন্ডাবাজ ও সন্ত্রাসীদের অবস্থানের কারণে ক্রয়কৃত দরপত্র জমা দিতে পারেননি। দরপত্র জমা দিতে গেলে টেন্ডারবাজ সন্ত্রাসীরা সাধারণ ঠিকাদারকে পুলিশ ও কারাগারের রক্ষিদের সামনে প্রান নাশের হুমকি দেয়। জীবনের ভয়ে সাধারণ ঠিকাদারগন কারা কর্তৃপক্ষের আহবানকৃত দরপত্র ক্রয় করে জমা দিতে পারেনি। সাধারণ ঠিকাদাররা আরো জানান, কেন্দ্রীয় কারাগারের সামনে প্রতিষ্ঠিত একটি ঠিকারদার প্রতিষ্ঠান ভাড়া করা সন্ত্রাসীদের মাধ্যমে পেশি শক্তি ব্যবহার করে কারাগারের কাজ হাতিয়ে নিতে সক্ষম হয়েছেন। সূত্রগুলো অভিযোগ করেন, উক্ত প্রতিষ্ঠানের ঠিকাদার গত ১১ অক্টোবর অত্র কারাগারে ডাল সরবরাহের দরপত্র হাতিয়ে নেয় বলে একাধিক অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রায় এক যুগের ও বেশি সময় ধরে প্রতিষ্ঠিত ওই প্রতিষ্ঠান কেন্দ্রীয় কারাগারের বিভিন্ন কাজ হাতিয়ে নিচ্ছে। অবশ্য এ ব্যাপারে উক্ত প্রতিষ্ঠানের প্রধান আসলামের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি সাংবাদিকদের কাছে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ অস্বীকার করেন।
স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা যায়, কেন্দ্রীয় কারাগারে দায়িত্ব পালন করতে আসা দুনীতিবাজ কর্মকর্তা আসলাম সিন্ডিকেটকে অশ্রয় প্রশ্রয় দিয়ে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। প্রতি বছরই কেন্দ্রীয় কারাগারের কাজ আসলাম সিন্ডিকেটসহ নিদিষ্ট কয়েকটি সিন্ডিকেট হাতিয়ে নেয়। গুটি কয়েক সিন্ডিকেটের বাইরে সাধারণ ঠিকাদাররা কাজ পায় না। আর এর নেপথ্যে সহযোগিতা করে কারাকর্তৃপক্ষ। এ ব্যাপারে সিনিয়র জেল সুপার কামাল হোসেনের কাছে সাংবাদিকরা জানতে চাইলে তিনি আনীত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, কোতয়ালি মডেল থানা, ও কেন্দীয় কারাগারের প্রধান ফটকে টেন্ডার জমা দেয়ার বাক্স রাখা হয়। সেখানে টেন্ডারবাজি হলে আমাদের কি করার আছে। কারণ আমরা টেন্ডারের যাবতীয় কাজ সম্পন্ন করেছি। এদিকে সাধারণ ঠিকাদাররা জানান, কারাগারের খাদ্য সরবরাহের টেন্ডারে পন্যের নিদিষ্ট দর বেঁধে দিলে সরকারের মোটা অংকের টাকা ব্যয় কমবে। আর নিদিষ্ট দর ছাড়া টেন্ডার আহবান করলে সরকারের অতিরিক্ত প্রায় দুই থেকে আড়াই কোটি টাকা বেশী গুনতে হবে। ডাল দরপত্র ক্ষেত্রেও সরকারকে ১ কোটি টাকা বেশী গুনতে হবে। কারণ ঠিকাদাররা কারাকর্তৃ পক্ষের সাথে যোগসাজসে উৎকোচের মাধ্যমে বেশি দর দিয়ে কাজ নেয়। অপর দিকে সাধারণ ঠিকাদার সকলে দরপত্রে অংশ গ্রহন করলে সরকারের অতিরিক্ত অর্থ ব্যয় কমতো। যার কারনে গ্রহনকৃত দরপত্র বাতিল পূর্বক পুনরায় খাদ্য সরবরাহের দরপত্র আহবানের জন্য কারা মহা পরিদর্শকসহ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের দৃষ্টি কামনা করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here