যশোর-৬ আসনের ক্ষমতাসীন মহাজোট ওবিরোধী জোটের ১২ প্রার্থী প্রচার প্রচারণায় ব্যস্ত

0
724

এম আর রকি : যশোরের দক্ষণ পূর্ব ঘেষে কেশবপুর উপজেলার অবস্থান। বর্ষকালে এই অঞ্চলে পানি নিস্কাসনের অভাবে জলবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। এ বছর জলবদ্ধতা ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। অথচ বর্তমান সরকারের আমলে যশোর জেলার ৬ টি আসনের মধ্যে এক মাত্র যশোর-৬ আসনে একজন জনপ্রশাসন প্রতি মন্ত্রী রয়েছেন। র্দীঘদিনের ভবদহ সমস্যায় জর্জরিত এই উপজেলা। কেশবপুর উপজেলা নির্বাচন অফিসার মো: বজলুর রশিদ জানান, এই উপজেলায় ১১টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভার নিয়ে গঠিত। এই উপজেলায় জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট দেওয়ার সংখ্যা রয়েছে ১লাখ ৯১ হাজার ২৬৮জন। এই উপজেলায় বর্তমানে জন সংখ্যা প্রায় আড়াই লক্ষাধিক।
স্বাধীনতার পর থেকে এই উপজেলা ভবদহ সমস্যায় অত্র অঞ্চলের কৃষক থেকে শুরু করে সর্ব শ্রেনীর মানুষ নানা সমস্যায় জর্জরিত। জলবদ্ধতা এখন স্থায়ী রুপ নিয়েছে এখানে। আগামী জাতীয় সংসদের একাদশ নির্বাচনে এই উপজেলা থেকে বর্তমান ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ ও মহাজোট,প্রধান বিরোধীদল বিএনপি’বর্তমানে ২০দলীয় ঐক্যজোটসহ ১২ জন প্রার্থীর কথা উঠে এসেছে খেটে খাওয়া মানুষের মধ্যে থেকে। এই উপজেলা আগামী একাদশ জাতীয় সংসদে বর্তমান ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের পক্ষে মহাজোটের বর্তমান জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক, এইচ এম আমির হোসেন, শেখ রফিক,কাজী রফিকুল ইসলাম,এ্যাডভোকেট হুসাইন ইসলাম,প্রধান বিরোধী দল বিএনপির পক্ষে ২০ দলীয় জোটের বিএনপি’র কেন্দ্রীয় নেতা আবুল হোসেন আজাদ, কেশবপুর উপজেলার মজিদপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবু বকর আবু,আব্দুস সামাদ বিশ্বাষ,জাতীয় পার্টির এডভোকেট আব্দুল মজিদ,উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ রানা,সাংবাদিক হাবিবুর রহমান ও জামায়াতের অধ্যাপক মুক্তার আলী। মূলত এই উপজেলার অধিকাংশ রাস্তাঘাট পানির কবলে নিম্মজিত। যোগাযোগ মাধ্যম একমাত্র নৌকা ছাড়া আর কিছু নয়। এই উপজেলার হাট বাজার গ্রাম গঞ্জে একাদশ জাতীয় নির্বাচনের আলাপ আলোচনা উঠলে প্রথমে ভোটারদের মধ্যে আলোচনার বিষয়বস্ত ভবদহ স্থায়ী সমস্যার সমাধান ও উন্নয়ন। বর্তমান আওয়ামীলীগ তথা মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে গত অনুষ্ঠিত নির্বাচনে ইসমাত আরা সাদেককে যেভাবে মেনে নেওয়া হয়েছে এবার তার পরিবর্তন হবে স্বতন্ত্র প্রার্থী দাড়ালে। বিএনপি’র আবুল হোসেন আজাদের বিপক্ষে জোটের অন্য প্রার্থী আশা পোষন করছে নির্বাচন জোট ভিত্তিক হলে বিএনপিকে এই আসনটি ছাড় দিতে হবে। বন্যায় কবলিত ভোটারগন নির্বাচনের কথা শুনে শিউড়ে উঠছে। তারা বলছে এই আসনে বর্তমান এমপি প্রতি মন্ত্রী হয়েও ভবদহ স্থায়ী সমস্যা গত চার বছরেও হয়নি। আর কতদিন তাদের এই পরিস্থিতির মধ্যে থাকতে হবে। এই উপজেলায় ভোটের চিত্র অন্যান্য আসনের চেয়ে ভিন্ন অবস্থা বিরাজ করছে ভোটারদের মধ্যে। তারপরও প্রার্থী হওয়ার আশায় যাদের নাম এলাকার মানুষের মধ্যে বিরাজ করছে তাদের ব্যাপারে নানা মন্তব্য করেছেন সর্ব শ্রেনীর মানুষ। এখন চুড়ান্ত প্রার্থী কে হবেন এটা দেখার অপেক্ষায় দিন গুনছে এই আসনের ভবদহ ও স্থায়ী জলবদ্ধতার শিকার নারী পুরুষেরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here