রাবি শিক্ষার্থীদের ওপর স্থানীয়দের হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ

0
60

রাবি প্রতিনিধি: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ব্যবসায় প্রশাসন ইনিস্টিটিউটের চার শিক্ষার্থীর ওপর স্থানীয়দের হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা । সোমবার বেলা ১২ টার দিকে রাবিতে এ বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

এ ঘটনায় তিন জন হামলাকারীকে ইতিমধ্যে মতিহার পুলিশ আটক করেছে বলে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাফিজুর রহমান জানান। আটককৃতরা হলেন, রবি, সিরাজুল ও ঊষা।

ব্যবসায় প্রশাসন ইনিস্টিটিউটের শিক্ষার্থীদের আয়োজনে বিক্ষোভ মিছিলটি কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে শুরু হয়ে ক্যম্পাসের বিভিন্ন রাস্তা প্রদক্ষিণ করে। পরে কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে এসে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

ভুক্তভোগী ফারহান তানভীর শোভন বলেন,”স্থানীয়রা পাওয়ার দেখানোর জন্যই মূলত আমাদের সাথে নোংরামি করে। তারা আমাদের ওপর নির্যাতন চালিয়ে যেতে চায়। তাই আমাদের রুখে দাঁড়াতে হবে।”

সমাবেশে বক্তারা বলেন,আমরা স্থানীয়দের কাছ থেকে বিভিন্নভাবে হেনস্থার শিকার হয়ে আসছি। আমাদের এই সমস্যার স্থায়ী সমাধান চাই।
সমাবেশে বক্তব্য রাখেন,ব্যবসায় প্রশাসন ইনিস্টিটিউটের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী শফিকুল ইসলাম,সাইফুল ইসলাম,বিবেক মোর ও প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী ফারহান তানভীর শোভন সহ প্রমুখ।

উল্লেখ্য, গত রোববার রাত ১১ টায় বিনোদপুর বাজারে স্থানীয়দের কাছে মারধর ও হেনস্থার শিকার হয় রাবির চার জন শিক্ষার্থী। তারা হলেন, ফারহান তানভীর শোভন,তাসলিমা তানহা শান্তা,তামান্না তারিন প্রাপ্তি,শিহাব আল কুরাইশ। তারা সবাই ব্যবসায় প্রশাসন ইনিস্টিটিউটের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী।মারধরের শিকার শোভন বলেন, রাত ১১টার দিকে বিনোদপুর বাসস্ট্যান্ডে আমাদের দুই বান্ধবী কে ঢাকার বাসে ওঠিয়ে দেয়ার জন্য কাউন্টারের পাশে অবস্থান করছিলাম। এসময় নেশাগ্রস্থ অবস্থায় স্থানীয় কিছু ছেলে আমাদের সাথে থাকা বান্ধবীদের নিয়ে বাজে ভাষায় কথা বলতে থাকে। একপর্যায়ে আমরা কয়েকজন প্রতিবাদ করতে গেলে তারা আমাদের সহ মেয়েদের গায়ে বেধড়ক চড়-থাপ্পর ও কিল-ঘুষি দিতে থাকে। এরপর আশেপাশে থাকা কয়েকজন লোক এগিয়ে আসলে তারা পালিয়ে যায়।

এ ঘটনায় শিহাব আল কুরাইশ বাদী হয়ে ৮ জনের নামে ও অজ্ঞাতনামা ১৫-২০ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন বলে নিশ্চিত করেছেন মতিহার থানার ওসি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here