শততম টেস্টে ঘুরিয়া দাঁড়াক বাংলাদেশ

0
191

বাংলাদেশের ক্রিকেটে ক্রমোন্নতির ধারা বেশ কয়েক বত্সর ধরিয়াই দৃশ্যমান। ওয়ানডে ক্রিকেটে তো বটে, এমনকি টেস্টেও বাংলাদেশের দামাল ছেলেরা উন্নতির আভাস দিয়া আসিতেছিলেন। কিন্তু সমপ্রতি তাহাদের টেস্টের পারফরম্যান্স অনেকটাই হতাশাজনক। বিশেষ করিয়া ভালো খেলিবার আশা জাগাইয়া শেষের দিন বা শেষদিকে তাহাদের হাল ছাড়িয়া দিতে দেখিয়া দর্শকরা যারপরনাই বিরক্ত। এভাবে তীরে আসিয়া তরী ডুবিয়া গেলে সকলেরই খারাপ লাগিবার কথা। গত গল টেস্টে ঘটিয়াছে এমনই ঘটনা। প্রথম হইতেই বলা হইতেছিল এই টেস্টে অভিজ্ঞ বাংলাদেশই ফেভারিট। কিন্তু শেষপর্যন্ত তরুণ শ্রীলঙ্কার নিকট তাহারা হারিয়া গেল ২৫৯ রানের বিশাল ব্যবধানে। অথচ পঞ্চম দিনে আগের ৬৭ রান ও ১০ উইকেট হাতে নিয়া খেলিতে শুরু করিলেও তাহারা সম্মানজনক ড্রও করিতে পারিল না। ব্যাটিং উপযোগী উইকেট থাকা সত্ত্বেও তাহারা মাত্র ৪৫ দশমিক ২ ওভারেই কুপোকাত! এইদিন ব্যাটসম্যানদের ড্রেসিংরুমমুখী আসা-যাওয়া দেখিয়া বাংলাদেশের ক্রিকেটপ্রেমী দর্শকমাত্রই বিস্মিত ও মর্মাহত হইয়াছেন।

শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে প্রথম টেস্টের ফলাফল দেখিয়া অনেকে এখন প্রশ্ন করিতেছেন, বাংলাদেশ কি আগের যুগে ফিরিয়া যাইতেছে? অন্তত আমরা তাহা মনে করি না। অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম স্বয়ং বলিয়াছেন যে, ব্যাটিং বিপর্যয়ের কারণেই ম্যাচটি হারিয়া গিয়াছে বাংলাদেশ। ব্যাটসম্যানদের মানসিকতা তাহাকে হতাশ করিয়াছে। মাত্র ৩৭ রানে ৫ উইকেট হারাইয়া বাংলাদেশ পরিণত হয় ধ্বংসস্তূপে। একে একে সাজঘরে ফিরিয়া যান মুমিনুল হক, তামিম ইকবাল, সাকিব আল হাসান ও মাহমুদউল্লাহ। ইহার পর ঘুরিয়া দাঁড়াইবার চেষ্টা যে ছিল না তাহা নহে। কিন্তু অধিনায়কের বিদায়ের পর আবার দেখা দেয় বিপর্যয় এবং ১৩ ওভারেই শেষ বাকি চার উইকেট। দুর্ভাগ্যজনকভাবে সাকিবের মতো বিশ্বসেরা ব্যাটসম্যানও এই দিন ধৈর্য নিয়া খেলিতে পারেন নাই।

বাংলাদেশ নূতন শতাব্দীর শুরুতে তথা ২০০০ সালে টেস্ট ক্রিকেটের মর্যাদা লাভ করে। ইহার পর নিজ দেশে এই বত্সরের ১০-১৩ নভেম্বর ভারতের সহিত প্রথম টেস্ট খেলে। কিন্তু আমরা ক্রিকেটের এই মর্যাদাকর ভার্শনে এখনও তেমন সাফল্যের দেখা পাই নাই। এই পর্যন্ত ৯৯টি টেস্ট খেলিয়া মাত্র আটটিতে জয়লাভ করিয়াছে বাংলাদেশ। হারিয়াছে ৭৬টি টেস্টে। ড্র করিয়াছে ১৫টিতে। তবে এমন কয়েকটি টেস্টও আমরা খেলিয়াছি যেখানে আমাদের জয় বা ড্রয়ের সম্ভাবনা ছিল ব্যাপক। কিন্তু অনভিজ্ঞতা, অপেশাদারিত্ব ও অবহেলায় আমরা সেই সুযোগ হাতছাড়া করিয়াছি। বিশেষ করিয়া টেস্টে ধৈর্য ও মনোসংযোগ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু উপর্যুপরি বিপর্যয়ে ব্যাটসম্যানদের মনস্তাত্ত্বিক যে সমস্যা দেখা দেয় মাঝেমধ্যে, তাহা দ্রুত কাটাইয়া উঠিতে হইবে। আমরা আশা করি, আগামী ১৫ মার্চ কলম্বোতে অনুষ্ঠিতব্য নিজেদের শততম টেস্ট ম্যাচ হইতেই বাংলাদেশ ঘুরিয়া দাঁড়াইবে। সব সময় ইতিবাচক খেলিবার প্রত্যয় ব্যক্ত করিবে। শততম টেস্ট উপলক্ষে বাংলাদেশের ক্রিকেট টিমের প্রতি রহিল আমাদের শুভ কামনা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here