শশীকলার সাজা ও গণতন্ত্রের শক্তি

0
252

মুখ্যমন্ত্রীর মসনদে আসীন হইবার সকল আয়োজন যখন সম্পন্ন ঠিক তখনই ভারতের তামিলনাড়ু রাজ্যের জননন্দিত নেত্রী শশীকলার ভাগ্যে বিপর্যয় ঘটিয়া গেল সুপ্রীম কোর্টের এক রায়ের কারণে। সেখানকার সদ্যপ্রয়াত মুখ্যমন্ত্রী জয়ললিতার ভগ্নি হিসাবে খ্যাত এবং জনগণের নিকট ‘চিনাম্মা’ হিসাবে পরিচিত শশীকলা দলের ও জনতার সমর্থন-ভালোবাসায় সিক্ত হইয়া রাজ্যবাসীর নিকট আম্মা হিসাবে সমাদৃত প্রয়াত নেত্রী জয়ললিতার শূন্যস্থানটি পূরণের জন্য সম্পূর্ণ প্রস্তুত ছিলেন। কিন্তু সুপ্রিম কোর্ট একটি দুর্নীতির মামলায় নিম্ন আদালতে তাহার বিরুদ্ধে ঘোষিত ৪ বছরের কারাদণ্ডাদেশ বহাল রাখার রায় প্রদান করায় শশীকলার সকল হিসাব-নিকাশই গোলমাল হইয়া গিয়াছে। ভারতে গণতন্ত্র অত্যন্ত মজবুত ভিতের উপর প্রতিষ্ঠিত বিধায় সেখানে এইরূপ ঘটনা ঘটিতে পারে। আর ইহাতেই যে গণতন্ত্রের সৌন্দর্য ও সামর্থ্য নিহিত তাহা তো বলাই বাহুল্য। যেই সকল দেশে আইনের শাসন, বিচার বিভাগের পূর্ণ স্বাধীনতা এবং অপরিহার্য অন্যান্য গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানসমূহ অত্যন্ত সক্রিয়, সামর্থ্যবান ও শক্তিশালী সেইসব দেশে গণতন্ত্রের বিকাশধারা আপন গতিতে আগাইয়া যায়। ন্যায় বিচার ও আইনের শাসন গণতন্ত্রের অপরিহার্য শর্ত। জনগণের সার্বিক মুক্তির ক্ষেত্রে গণতন্ত্র সবচাইতে নির্ভরযোগ্য রক্ষাকবচ হইতে পারে যদি উহার সহিত সম্পর্কযুক্ত প্রতিষ্ঠানসমূহ অবাধে ও স্বাধীনভাবে কাজ করিতে পারে। যেইসব দেশে এইসব প্রতিষ্ঠান দুর্বল ও শাসকদের আজ্ঞাবহ সেইখানে গণতন্ত্র প্রাতিষ্ঠানিক রূপ পাইতে পারে না। দায়বদ্ধতা, স্বচ্ছতা, জনস্বার্থ সংরক্ষণে অঙ্গীকারবদ্ধতা, দুর্নীতি রোধসহ সকল ক্ষেত্রে আইনের শাসনের নিশ্চয়তাই পারে গণতন্ত্রকে সুদৃঢ় ভিত্তির উপর সুপ্রতিষ্ঠিত করিতে।

শশীকলার কারাদণ্ডের ঘটনায় প্রমাণিত হয় যে, গণতন্ত্রের শক্তিই আলাদা। আর এই শক্তির কারণেই গণতন্ত্র এ যাবত্কালে উদ্ভাবিত সকল প্রকার শাসন ব্যবস্থার মধ্যে সবচাইতে উত্কৃষ্ট হিসাবে গণ্য হইয়া আসিতেছে। ‘গণতন্ত্র’ শব্দটির সহিত অনেকগুলি মৌলিক বিষয় এবং প্রতিষ্ঠানের অস্তিত্ব সমার্থক। ওইসব অনুষঙ্গ যদি সমাজে প্রতিষ্ঠা না পায় এবং উহারা যদি গণতন্ত্রকে রক্ষা ও উহাকে সমুন্নত রাখার জন্য যাবতীয় বিধি-বিধান, আইন-কানুনের স্বচ্ছ ও কঠোর প্রয়োগ নিশ্চিত না করিতে পারে তাহা হইলে গণতন্ত্র শুধু নামসর্বস্ব একটি শাসন ব্যবস্থা হিসাবে চিহ্নিত হয় মাত্র। আর সে কারণেই বিভিন্ন শাসক তাহাদের মতলবী শাসন বজায় রাখার নিমিত্তে ঐসব প্রথা-প্রতিষ্ঠানকে খর্বকারী নানান ব্যবস্থা জনগণের উপর চাপাইয়া দেয় গণতন্ত্রকে বিভিন্ন মোড়কবন্দী করার মাধ্যমে। এইভাবেই কথিত লৌহমানব আইউবের আমলে মৌলিক গণতন্ত্র নামক এক কিম্ভূতকিমাকার শাসন ব্যবস্থার জন্ম হইয়াছিল। সামরিক শাসকেরা তো অবৈধ উপায়ে ক্ষমতা দখলের পর গণতন্ত্রের নামাবলি গায়ে চড়াইয়া প্রতিষ্ঠিত আইন কানুন, বিধি-ব্যবস্থাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করেন অবলীলায়।

শহীদ সোহরাওয়ার্দী বলিতেন, গণতন্ত্র মানুষেরই উদ্ভাবিত একটি ব্যবস্থা বিধায় ইহার সীমাবদ্ধতা ও কিছু দোষ-ত্রুটি আছে; কিন্তু তত্সত্ত্বেও এ যাবত্কাল যত প্রকার ব্যবস্থা প্রবর্তিত হইয়াছে তন্মধ্যে গণতন্ত্রই যে সর্বাধিক উত্তম ব্যবস্থা, ইহা এক বাক্যে সকলেই স্বীকার করেন নিশ্চয়ই। কিন্তু শাসকেরা ঐ খানিক দোষ-ত্রুটির ফাঁক ফোকর দিয়া ইহার অপব্যবহার করিয়া থাকেন, ফলে ‘গণতন্ত্র’ অনেক সময় জনগণের পরিবর্তে মুষ্টিমেয় কিছু লোকের জন্য সুবিধা বহিয়া আনে মাত্র!

গণতন্ত্রের সহিত বিভিন্ন বিশেষণ জুড়িয়া দিয়া প্রকৃত গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার পরিবর্তে যাহারা মুষ্টিমেয় লোকের সুবিধার গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেন তাহারা ঠিক কাজটি করেন না নিশ্চয়ই। আবার যাহারা গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য প্রাণপণ সংগ্রাম করিতেছেন বলিয়া দাবি করেন তাহারাই যখন ‘বিশেষ কোনো রাজনৈতিক নেতা-নেত্রীর সাজা হইলে দেশে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হইবে না’ বলিয়া হুমকি দেন তাহারাও যে গণতন্ত্রকে কোন চোখে দেখেন উহাও ভাবিবার বিষয় বৈকি!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here