শিক্ষণীয় হইয়া থাকুক দক্ষিণ আফ্রিকা সফর

0
202

সদ্য দক্ষিণ আফ্রিকা সফর শেষ করিয়া দেশে ফিরিয়াছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। ৪৫ দিনের এই সফরটিতে অন্যতম পরাশক্তিধর স্বাগতিকদের বিরুদ্ধে ক্রিকেটের তিন সংস্করণেই অগ্নিপরীক্ষা দিতে হইয়াছে সফরকারীদের। টেস্ট, ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি মিলাইয়া টাইগাররা সেইখানে সর্বমোট সাতটি ম্যাচ খেলিয়াছে। কিন্তু একটি ম্যাচেও জয়ের স্বাদ আস্বাদন করিতে পারে নাই বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। এমনকি কোনো ম্যাচে প্রতিদ্বন্ধিতাও গড়িয়া তুলিতে পারে নাই। প্রথম টেস্টে ৩৩৩ রানের হার। পরের টেস্টে ইনিংস ও ২৫৪ রানের হার। তিন ওয়ানডেতে যথাক্রমে ১০ উইকেট, ১০৪ রান ও ২০০ রানে পরাজয় বরণ করে বাংলাদেশ দল। সবশেষে দুইটি টি-টোয়েন্টিতে যথাক্রমে ২০ ও ৮৩ রানে হারিয়া নিজেদের ব্যর্থতার ষোলোকলা পূর্ণ করে সফরকারীরা।

ক্রিকেট অঙ্গনে বাংলাদেশ এখনো একটি নবীন দল। কিন্তু এই দলটিই গত তিন বত্সরে দেশের ক্রিকেটকে লইয়া গিয়াছে অনন্য উচ্চতায়। নিজেদের সামর্থ্যের জানান দিয়া ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও শ্রীলঙ্কার মতো বিশ্বকাপ জয়ী দলকেও পিছনে ফেলিয়া ইতোমধ্যেই টাইগাররা আইসিসি ওয়ানডে র্যাংকিংয়ের সপ্তম স্থানে উঠিয়া আসিয়াছে। উপরন্তু ক্রিকেট পরিসংখ্যানেও দেখা যায়, নিজেদের মাটিতে বাংলাদেশ একটি অপ্রতিরোধ্য দল। চলতি বত্সরে নিজেদের মাটিতে ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়াকেও নাস্তানাবুদ করিয়াছে বাংলাদেশ। ভারতসহ অন্য বড় দলগুলির সহিতও জয়ের ইতিহাসের পাতা লম্বা হইতেছে টাইগারদের। তাহা ছাড়া সাফল্যের ধারাবাহিকতার বিচারেও অনেক ক্রিকেট বিশ্লেষক বাংলাদেশকে ক্রিকেট দুনিয়ার উদীয়মান পরাশক্তির খেতাব দিয়া থাকেন। অবশ্য এইবার বত্সরের শুরুতে নিউজিল্যান্ড হইতে তিন ফরম্যাটের সর্বমোট আটটি ম্যাচে হারিয়া শূন্য হাতে ফিরিয়াছিল বাংলাদেশ দল। তবে সেই সফরে ফ্রেমে বাঁধাই করিয়া রাখিবার মতো কিছু ব্যক্তিগত পারফরম্যান্স ছিল। কিন্তু সদ্যসমাপ্ত দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে প্রথম ওয়ানডেতে মুশফিকুর রহিমের একটি শতক ছাড়া বলিবার মতো আর কোনো ব্যক্তিগত পারফরম্যান্স নাই। ইহা ঠিক যে, নিজেদের মাটিতে বিশ্বের বেশির ভাগ দলের পারফরমান্স অত্যন্ত ভালো হইয়া থাকে। আর স্বাগতিক দল হিসাবে দক্ষিণ আফ্রিকা এই ক্ষেত্রে সবচাইতে অপ্রতিরোধ্য। গত বত্সর অস্ট্রেলিয়ার মতো দলও পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হইয়া ফিরিয়াছিল দক্ষিণ আফ্রিকা হইতে। উপরন্তু কন্ডিশন ও শারীরিক সামর্থ্যের বিচারেও তাহারা সফরকারী দলের তুলনায় আগাইয়া ছিল। সুতরাং সাত ম্যাচে হোয়াইট ওয়াশ লইয়া যতই সাতকাহন থাকুক না কেন, এই পরিসংখ্যানও বিবেচনায় রাখিতে হইবে যে নিজেদের আঙিনায় প্রোটিয়ারা ক্রিকেটবিশ্বের সবচাইতে দুর্দান্ত একটি দল।

তবে এই ভাবিয়া আমাদের আত্মতৃপ্তির ঢেকুর তুলিবার কোনো সুযোগ নাই। বরং ভবিষ্যতে বিদেশের মাটিতে কীভাবে নিজেদের ক্রীড়ানৈপুণ্যের সর্বোচ্চ ব্যবহার করা যায়, সেই চেষ্টায় কোনো ত্রুটি রাখা যাইবে না। নির্বিষ বোলিং, ছন্নছাড়া ব্যাটিং, খাপছাড়া ফিল্ডিং—এই সকল নেতিবাচক বৃত্ত হইতে বাহির হওয়া জরুরি। ক্রিকেটে পরাশক্তিধর হিসাবে নিজেদের উন্নীত করিবার যোগ্যতার ঘাটতি নাই টাইগারদের। যে কোনো পরাজয়ের মধ্যেই সুপ্ত থাকে নূতন জয়ের বীজ। তাহাকে লালন করিতে হইবে যথাযথভাবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here