সন্ত্রাসবাদ নিপাত যাক

0
276

ব্রিটিশ পার্লামেন্টের সদস্যরা দাঁড়িয়ে আনত মস্তকে ১ মিনিট নীরবতা পালন করছেন। বৃহস্পতিবারের এ দৃশ্যটি শুধু ইংল্যান্ড নয়, ইউরোপ নয়; সারাবিশ্বে একটি বিশেষ বার্তা বহন করছে। পৃথিবীর জন্য দুঃসময় এখন। কোনো রাষ্ট্রনায়ক বা বিশ্বনন্দিত বিশিষ্ট মানুষের বিয়োগে নয়; আকস্মিক ও অভাবিত এক সন্ত্রাসী আক্রমণে একজন সাহসী পুলিশ অফিসার ও দু’জন পথচারীর অনাকাঙ্ক্ষিত মৃত্যুতে তাদের স্মৃতির উদ্দেশে শোক জানাতে পার্লামেন্টে এ নীরবতা পালন। গণতন্ত্র, মানবতা, বহু জাতি-ধর্ম-বর্ণ-গোষ্ঠীর মিলনে গড়ে ওঠা মানব সভ্যতার প্রতি হিংস্র আক্রমণের বিরুদ্ধে এ হচ্ছে নীরব বজ্রনির্ঘোষ প্রতিবাদ। মানবিকতাবিরোধী জঙ্গি সন্ত্রাসবাদকে সম্পূর্ণ পরাভূত করার দৃঢ়সংকল্পের প্রকাশ। সারাবিশ্বের গণতান্ত্রিক মানবিক শক্তি এই দুরূহ মুহূর্তে ব্রিটেনের জনগণ ও সরকারের পাশে দাঁড়িয়ে সংহতি জানাচ্ছে। আমরা লন্ডনের এই হামলার তীব্র নিন্দা জানাই; বৈশ্বিক সন্ত্রাসী অপশক্তির বিরুদ্ধে তীব্র ঘৃণা জানাই এবং জঙ্গি সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে সব দেশের শান্তিকামী, সভ্য মানুষের সংগ্রামে সংহতি জানাই।
তখন পার্লামেন্টের উভয় কক্ষের অধিবেশন চলছিল। বুধবার ২২ মার্চ গ্রিনিচ মান সময় ২টা ৪০ মিনিট থেকে আধুনিক গণতন্ত্রের সূতিকাগার ও প্রতীকস্বরূপ যুক্তরাজ্যের ওয়েস্টমিনস্টার ভবনের সামনের রাস্তা ও পার্লামেন্টের প্রবেশদ্বার পর্যন্ত যে হামলা চালানো হয়েছে, তা বর্তমান সন্ত্রাসবাদী কৌশলের কয়েকটি নতুন দিক তুলে ধরেছে। এই বৈশিষ্ট্যগুলো সম্পর্কে আমাদের দেশসহ পৃথিবীর সব দেশকেই সতর্ক হতে হবে এবং প্রতিরোধমূলক প্রস্তুতিতে তা স্মরণে রাখতে হবে। হামলার ২৪ ঘণ্টা পর এই লেখার সময় পর্যন্ত পুলিশ হামলাকারী একজন মাত্র ব্যক্তি বলেই উল্লেখ করেছে। সে একটি মোটরগাড়ি নিয়ে টেম্স নদীর ওপর ওয়েস্টমিনস্টার সেতুর ফুটপাতে উঠে গিয়ে পথচারীদের চাপা দিয়ে ভীতসন্ত্রস্ত করতে থাকে এবং বিগবেন ঘড়ির টাওয়ারের নিচে এসে রেলিংয়ে ধাক্কা খায়। হামলাকারী দৌড়ে পার্লামেন্টের গাড়ি প্রবেশের দুয়ারে বাধা দানকারী এক পুলিশ অফিসারকে ছুরিকাঘাত করে। এই পুলিশ অফিসার ছিলেন অস্ত্রহীন। তখন অস্ত্রধারী পুলিশদের একজন হামলাকারীকে গুলি করে হত্যা করে। ঘটনায় হামলাকারী ছাড়া ছুরিকাহত পুলিশ অফিসার এবং এক নারীসহ দু’জন পথচারী, মোট চারজন নিহত ও অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন, যার মধ্যে আটজন গুরুতর আহত। গত বছর জুলাইতে ফ্রান্সের সমুদ্রসৈকত নিসে এবং পরে বার্লিনের হত্যাকাণ্ডে এ রকম গাড়িচালক একক হামলাকারী দেখা গেছে। লন্ডনে কেবল ছুরি নিয়ে আসার ঘটনা প্রমাণ করে_ সন্ত্রাসীরা এখন বড় ও সময়সাপেক্ষ পরিকল্পনা ও বেশিসংখ্যক হামলাকারী যুক্ত না করে এক-দুইজন বোমা-বারুদ ছাড়াই সাধারণ অস্ত্র নিয়ে দ্রুত প্রস্তুতিতে আঘাত হানছে, যাতে গোয়েন্দাদের খবর পাওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে। ব্রিটেনের স্কটল্যান্ড ইয়ার্ড ও এমআই৫ গোয়েন্দা সংস্থার দক্ষতার খ্যাতি আছে। তারা নিজেরা হামলাকারীদের আল কায়দা বা ইসলামিক স্টেটের বলে উল্লেখ করেনি। ব্যাপক তদন্ত চলছে এবং একক হামলাকারীর সম্ভাব্য সঙ্গীদের প্রথমে খোঁজা হচ্ছে। ঘটনার ২৪ ঘণ্টার পর আইএস হামলার দায় স্বীকার করে। আইএস তাদের সাইটে বলেছে, ইরাকের মসুলে ব্রিটিশ বিমান হামলার কারণে এ হচ্ছে ‘রক্তের বদলে রক্ত’।
সন্ত্রাসী যে নামে বা যে গ্রুপেরই হোক, তারা সন্ত্রাসী এবং মানবতার শত্রু। নিশ্চয়ই লন্ডনে হামলাকারীরা ধরা পড়বে ও বিচার হবে। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে পরদিনই অধিবেশন চালু রেখে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে চেয়েছেন। অবশ্যই সন্ত্রাসবাদের কাছে জীবন হার মানতে পারে না। আজ সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে সারা পৃথিবীর মানুষের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার সময়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here