সময় এখন মাথা উঁচু করে দাঁড়াবার

0
286

‘উন্নয়নের মহাসড়কে এগিয়ে চলেছি দুর্বার, এখন সময় বাংলাদেশের মাথা উঁচু করে দাঁড়াবার।’ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এই শ্লোগানটি আমাদের দেশের বর্তমান প্রেক্ষাপটে একেবারেই যথার্থ। সত্যিই বাংলাদেশের এখন মাথা উঁচু করে দাঁড়াবারই সময়। সরকারের দৃষ্টি এখন আরো সামনের দিকে প্রসারিত। জাতির পিতার সোনার বাংলা আর বেশিদিন স্বপ্ন হয়ে থাকবে না। বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার দূরদর্শী সাহসী নেতৃত্বে বাংলাদেশ আলোকোজ্জ্বল নতুন স্তরে উন্নীত হবে। মধ্যম আয়ের দেশ হতে উন্নত দেশের স্তরে বাংলাদেশের অভিযাত্রায় তাঁর অনুপ্রেরণা, প্রজ্ঞা ও সাহস বাঙালি জাতিকে নবতর চেতনায়, স্বপ্নে ও কর্ম-সাধনায় উজ্জীবিত করবে।

মিলেনিয়াম ডেভেলপমেন্ট গোল বা এমডিজি’র বেশির ভাগ সূচকে বাংলাদেশের সাফল্য জাতিসংঘ তথা দেশ-বিদেশে প্রশংসিত। দারিদ্র্য বিমোচন, সার্বজনীন প্রাথমিক শিক্ষা, নারী-পুরুষ সমতা, নারীর ক্ষমতায়ন, মায়ের স্বাস্থ্যসেবা পরিস্থিতির উন্নয়ন এবং শিশুমৃত্যুর হার কমিয়ে আনার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ এরই মধ্যে জাতিসংঘের রোল মডেল। এমডিজির সাফল্যের পর জাতিসংঘ প্রণয়ন করেছে সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট গোল বা এসডিজি। বাংলাদেশে এসডিজি বাস্তবায়নের কাজ চলছে দ্রুততম গতিতে। এসডিজি বাস্তবায়নকে দ্রুততর করার জন্য সাধারণ মানুষের প্রাথমিক চিকিত্সা, স্বাস্থ্য সেবার দক্ষতা ও সেবার মান উন্নয়নের মাধ্যমে সর্বজনীন স্বাস্থ্য সেবা দিয়ে টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করতে চতুর্থ স্বাস্থ্য, জনসংখ্যা ও পুষ্টি সেক্টর কর্মসূচি শীর্ষক একটি প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)। ৫ বছর মেয়াদি এ প্রকল্পের মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ১ লাখ ১৫ হাজার ৪৮৬ কোটি ৩৬ লাখ টাকা। এটাই এ যাবত্কালে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় প্রকল্প। স্বাস্থ্য সেবার উন্নয়নে এটি একটি ধারাবাহিক কর্মসূচি। এর আগে ১৯৯৮ সাল থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত তিনটি কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হয়েছে। চলতি অর্থবছর থেকে বাস্তবায়ন শুরু হয়ে আগামী ২০২২ সালের জুনে এ কর্মসূচির মেয়াদ শেষ হবে। আর জাতিসংঘ ঘোষিত এসডিজি বাস্তবায়নের মেয়াদ শেষ হবে ২০৩০ সালে। অর্থাত্ এসডিজি বাস্তবায়নের অনেক আগেই বাংলাদেশ এসডিজির স্বাস্থ্যসংক্রান্ত বিষয়গুলোর লক্ষ্যমাত্রা পরিপূরণে সক্ষম হবে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে ভুটানের রাজধানী থিম্পুতে গত ১৯ এপ্রিল তিন দিনের ‘অটিজম অ্যান্ড নিউরো ডেভেলপমেন্টাল ডিজঅর্ডারস’ শীর্ষক আন্তর্জাতিক সম্মেলনের উদ্বোধন করেছিলেন শেখ হাসিনা। রয়্যাল ব্যাঙ্কোয়েট হলে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক এই সম্মেলনের অংশ হিসেবে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য নিয়ে উচ্চ পর্যায়ের একটি আলোচনা সভা হয়। অটিজম বিষয়ক এই আন্তর্জাতিক সম্মেলনের উদ্বোধন করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, এ ধরনের জটিলতায় আক্রান্তদের সহায়তায় রাষ্ট্রকেই এগিয়ে আসতে হবে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভুটানের প্রধানমন্ত্রী শেরিং তোবগে বিশ্বব্যাপী অটিজম সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টিতে বাংলাদেশের ভূমিকার প্রশংসা করেন। বাংলাদেশ ও ভুটানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের যৌথ উদ্যোগে অনুষ্ঠিত এই সম্মেলন কারিগরি সহায়তা দিয়েছে সূচনা ফাউন্ডেশন (সাবেক গ্লোবাল অটিজম), অ্যাবিলিটি ভুটান সোসাইটি (এবিএস) ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া কার্যালয়। এএসডি ও অন্যান্য নিউরো ডেভেলপমেন্টাল সমস্যায় ব্যক্তি, পরিবার ও সমাজের জন্য কার্যকর ও টেকসই বহুমুখী কর্মসূচির লক্ষ্য নিয়ে আয়োজিত হয়েছিল এই সম্মেলন।

অল্প কিছুদিন আগে স্বল্পোন্নত দেশের আয়সীমা অতিক্রম করে নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশের তালিকায় স্থান পেয়েছে বাংলাদেশ। আমাদের লক্ষ্য, ২০২১ সালের মধ্যেই মধ্যম আয়ের দেশের তালিকায় নিজের অবস্থান সুদৃঢ় করা। অত্যন্ত জনবহুল এবং রাজনৈতিক অস্থিরতায় আক্রান্ত একটি দেশ হওয়া সত্ত্বেও টেকসই উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় থাকায় বাংলাদেশ দারিদ্র্য বিমোচনের ক্ষেত্রে অভাবনীয় সাফল্যের চমক দেখিয়েছে। দারিদ্র্যের হার শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনতে প্রয়োজনীয় সব উদ্যোগ এবং কর্মকাণ্ড চালিয়ে যেতে নিরন্তর পরিশ্রম করে চলেছেন সরকার। অনাকাঙ্ক্ষিত প্রতিবন্ধকতাকে বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে অতিক্রম করে উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রেখে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ একটি জাতির নেতা থেকে ক্রমান্বয়ে বিশ্বনেতার মর্যাদায় আসীন হয়েছেন। এ জন্য তিনি সর্বাবস্থায় জাতির পিতার আদর্শ ও কর্মপরিকল্পনাকে অগ্রাধিকার দিয়েছেন। বঙ্গবন্ধুর সফল নেত্বত্বের যে-পথ ধরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এগিয়ে চলছেন সেখানে উন্নয়ন, অগ্রগতি এবং প্রগতি অনিবার্য। বাংলাদেশ সে পথের দিকেই দৃপ্ত পদক্ষেপে এগিয়ে চলেছে।

তিনি তাঁর সকল শক্তি, মেধা ও প্রজ্ঞাকে সম্মিলিতভাবে সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা থেকে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য যেভাবে বিনিয়োগ করেছেন, তাতে বিভিন্ন সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান বিস্ময়করভাবে এগিয়ে চলছে। জাতিসংঘ এসডিজি বাস্তবায়নকারী দেশগুলোকে বলেছে, আগামীতে কীভাবে টেকসই উন্নয়নের মাধ্যমে অভাবনীয় সাফল্য অর্জন করা যায়, সেই সব সূচক অর্জনে তারা যেন বাংলাদেশকে অনুকরণ করে। বাংলাদেশই দেখিয়েছে কীভাবে চরম দারিদ্র্য দূর করতে হয়, কীভাবে প্রাথমিক শিক্ষাকে সব শিশুর মাঝে ছড়িয়ে দেওয়া যায়, নারী ও পুরুষের মধ্যে বিদ্যমান বৈষম্য কমানো যায় এবং শিশুমৃত্যুর হার কমিয়ে মাতৃস্বাস্থ্যের উন্নয়ন থেকে শুরু করে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় দক্ষিণ এশিয়াতে তো বটেই সমগ্র পৃথিবীতেই কীভাবে আইকনে পরিণত হওয়া যায়।

বাংলাদেশকে সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিতে সরকার জোর দিয়েছে কানেক্টিভিটির দিকে। সড়ক, রেল ও নৌ যোগাযোগের বিস্তৃতি ঘটাচ্ছেন দ্রুততার সঙ্গে; পাশাপাশি তথ্যপ্রযুক্তি যোগাযোগের ক্ষেত্রকে মানুষের হাতের মুঠোয় নিয়ে হাজির করছে। বাংলাদেশের ১২ কোটি মানুষ এখন মোবাইল ফোন ব্যবহার করে। ইন্টারনেট দুনিয়ায় নিয়মিত বিচরণ করে প্রায় ৭ কোটি মানুষ। ইন্টারনেট দুনিয়ায় পা রাখা মানুষের সংখ্যা প্রতিদিনই বাড়ছে। এ জন্য কার্যকর ভূমিকা রেখে চলেছেন প্রধানমন্ত্রীর সুযোগ্য পুত্র তথা বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়। তাঁর তত্ত্বাবধানে আইসিটি সেক্টরে দৃশ্যমান সাফল্য অর্জিত হয়েছে। দেশ জুড়ে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে ১৮ হাজার ১৩০টি সরকারি অফিসে কানেক্টিভিটি স্থাপন করা হয়েছে। একেবারে তৃণমূলের মানুষও এ কানেক্টিভিটির সুফল পাচ্ছেন। মানুষকে এই প্রযুক্তিগত কানেক্টিভিটির দিকে এগিয়ে নিয়ে চলেছেন তিনি। তার কর্মতত্পরতায় রাজধানী থেকে শুরু করে প্রান্তিক জনপদের জনগণ আইসিটি সেবার আওতায় এসেছে। পাশাপাশি প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে ব্যবসা-বাণিজ্য প্রসারে এবং গতিশীলতা আনতে কানেক্টিভিটি চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছে বাংলাদেশ।

দেশের বিভিন্ন জায়গায় বিশেষ রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। সেখানে দেশি-বিদেশি উদ্যোক্তাদের বিনিয়োগের দারুণ সম্ভাবনা ও সুযোগ সৃষ্টি করা হয়েছে। এর ফলে দেশে কর্মসংস্থানের বিরাট সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। একইভাবে দেশে বিভিন্ন দেশ থেকে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স প্রবাহ বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিদেশে বৈধ পথে স্বল্প খরচে দক্ষ অদক্ষ জনশক্তি পাঠানোর কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে সরকারের তরফ থেকে। চলতি বছর ১০ লাখ জনশক্তি বিদেশে পাঠানোর লক্ষ্য ঘোষণা করেছে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়।

সব মিলে উন্নয়নের প্রশ্নে বাংলাদেশের আর পেছন ফেরার অবকাশ নেই। এখন শুধু সামনে চলা। যিনি দেশের জন্য যেটুকু করেন, দেশই সে কথা জানিয়ে যাবে যথাসময়ে। কর্মসূত্রে আমি অনেকভাবেই সাধারণ মানুষের কাছাকাছি গিয়েছি। আমি দেখেছি, আসলে জনগণ তাকেই পছন্দ করেন যিনি মনপ্রাণ দিয়ে দেশের জন্য কাজ করেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের আগামীর এগিয়ে চলা শুধুই সাফল্যের। বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবেই।

লেখক :সচিব, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here