সরকারি দপ্তরের ৩ লক্ষ ২৮ হাজার ৩১১ শূন্য পদে নিয়োগ

0
209

সরকারি দপ্তরগুলিতে মোট পদের এক-চতুর্থাংশই খালি পড়িয়া আছে। জাতীয় সংসদে এক প্রশ্নোত্তর পর্বে জনপ্রশাসন মন্ত্রী জানাইয়াছেন, বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগসহ সরকারি দপ্তরগুলিতে মোট শূন্য পদের সংখ্যা ৩ লক্ষ ২৮ হাজার ৩১১। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী, বিভিন্ন পর্যায়ে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীর অনুমোদিত পদ সংখ্যা ১৭ লক্ষ ১০ হাজার ৭০৪। এই হিসাবে সরকারি দপ্তরগুলিতে মোট পদের এক-চতুর্থাংশই খালি পড়িয়া আছে। অথচ সমগ্র দেশে ২৬ লক্ষ পূর্ণ বেকার কাজ খুঁজিয়া বেড়াইতেছে। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) সর্বশেষ শ্রমশক্তি জরিপে দেশে পূর্ণ বেকারের এইসংখ্যা উঠিয়া আসিয়াছে। জরিপে জানা যায়, শতাংশের হিসাবে দেশে পূর্ণ বেকারত্বের হার ৪ দশমিক ২ শতাংশ। নারী জনগোষ্ঠীর বেকারত্বের হার ৬ দশমিক ৮ শতাংশ। পুরুষের বেকারত্বের হার ৩ শতাংশ।

এসকল পদ খালি থাকায় প্রশাসনের কাজের গতি যেমন কমিয়াছে, তেমনই সেবা পাইতে গিয়া ভোগান্তি পোহাইতে হইতেছে জনগণকে। শূন্য পদে দ্রুত নিয়োগদানের জন্য একাধিকবার নির্দেশনা প্রদান করা হইলেও তাহা বাস্তবায়নের কার্যকর উদ্যোগ নাই। যাহারা নিয়োগের দায়িত্বে আছেন, খালি পদগুলি পূরণে ব্যর্থতা তাহাদের অদক্ষতার পরিচয় বহন করে। ক্ষেত্রবিশেষে নিয়োগ প্রক্রিয়াকে অকারণে জটিল করিয়া তোলা হইয়াছে। সরকারি চাকুরিতে নিয়োগের দীর্ঘসূত্রতার কারণ খুঁজিতে ২০১২ সনে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় পরিচালিত অনুসন্ধানে দেখা যায়, পদ সৃজন হইতে শুরু করিয়া পদ পূরণ পর্যন্ত এক একটি নিয়োগে সর্বোচ্চ সাত বত্সর সময় লাগিয়া যায়। এই দীর্ঘসূত্রতা কমাইতে সচিব কমিটি ১১ দফা সুপারিশ করিয়াছিল। কিন্তু তাহা বাস্তবায়নে কোনো কার্যকর উদ্যোগ এখন পর্যন্ত দেখা যায় নাই। প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির পদগুলিতে নিয়োগ দান করে সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি)। আর তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির পদে সরাসরি নিয়োগ দান করে মন্ত্রণালয়। বিসিএস পরীক্ষার মাধ্যমে সরকারি চাকুরিতে বিভিন্ন কোটায় নিয়োগ দেওয়া হয় ৫৫ শতাংশ। আর মেধায় নিয়োগ দেওয়া হয় মাত্র ৪৫ শতাংশ। এসকল কোটা পূরণ না হইলে সেখানে ১ শতাংশ বরাদ্দ রাখা হইয়াছে প্রতিবন্ধীর জন্য। আর যদি সংশ্লিষ্ট চাকুরির ক্ষেত্রে এসকল প্রাধিকার কোটা পূরণ হইয়া যায়, সেইক্ষেত্রে মেধা তালিকা হইতে প্রতিবন্ধীর কোটা পূরণ করা হয়। নন ক্যাডার প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকুরির ক্ষেত্রেও একই কোটা পদ্ধতি অনুসরণ করা হয়। তবে, অনেক ক্ষেত্রেই কোটায় যোগ্য প্রার্থী পাওয়া না গেলে পদগুলি শূন্য পড়িয়া থাকে। পিএসসি বলিতেছে, কোটা মানিতে গিয়া প্রশাসনে হাজার হাজার পদ খালি থাকিতেছে। ২৮ হইতে ৩২তম ৫টি বিসিএসের ফল পর্যালোচনা করিলে দেখা যায়, যোগ্য প্রার্থী না থাকায় বিভিন্ন কোটায় ৪ হাজার ২৮৭টি পদ শূন্য রাখিতে হইয়াছে।

সরকারি চাকুরির এক-চতুর্থাংশ ফাঁকা থাকা কোনো স্বাভাবিক ব্যাপার নহে। আমরা নিশ্চিতভাবেই বলিব, দেশে শিক্ষিত যুবকরা বেকার থাকিবার অর্থ হইল, শ্রমের অপচয় হইতেছে, জনসেবাও বিঘ্নিত হইতেছে। কেবল তাহাই নহে, এই অস্থির সময়ে বেকার যুবসমাজ নানা অসামাজিক তত্পরতায়ও নিজেদের নাম লেখাইয়া ফেলিতেছে, বাস্তব প্রমাণও নিয়মিত মিডিয়ায় তুলিয়া ধরা হইতেছে। তাই, যেভাবেই হউক অনতিবিলম্বে শূন্য পদ পূরণে উদ্যোগী হইতে হইবে। উন্নয়নে গতিসঞ্চারের পাশাপাশি সরকারি সেবার মান নিশ্চিত করিতে যেমন, তেমনই এই অস্থির সময়কে মোকাবিলার জন্যও ইহা অত্যাবশ্যক বলিয়া আমরা মনে করি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here