সর্বাঙ্গে ব্যথা, ঔষধ দিব কোথা’

0
273
সম্প্রতি টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলায় ১০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান অডিটের নামে শিক্ষকদের জিম্মি করিয়া লক্ষ লক্ষ টাকা উেকাচ বাণিজ্যের অভিযোগ ওঠে। ইত্তেফাকে প্রকাশিত এই সংক্রান্ত এক প্রতিবেদনে বলা হয়, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নিয়োজিত দুই বিসিএস কর্মকর্তা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের পরিবর্তে একটি বিলাসবহুল রিসোর্ট ভাড়া নিয়া অডিট কার্যক্রম পরিচালনা করেন এবং অডিটের নামে ঐসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক ও কর্তৃপক্ষের নিকট দাবি করেন মোটা অঙ্কের টাকা। দাবিকৃত অর্থ না দেওয়া হইলে অডিট ফাইল আটকাইয়া দেওয়া হইবে বলিয়া হুমকি দেওয়া হয়।
‘উেকাচ’ শব্দটির উদ্ভব মূলত সংস্কৃত ভাষা হইতে। ইহার সহজ অর্থ হইল ঘুষ। মানে অবৈধ সহায়তার জন্য প্রদত্ত গোপন পারিতোষিক। কিন্তু এই জামানায় ঘুষ আর কোনো গোপন বিষয় নহে। ইহাকে বলা হয় ওপেন সিক্রেট। এই ঘুষ যেন-বা এখন একটি অপরিহার্য বস্তুতে পরিণত হইয়াছে। সরকারি অফিস তো বটে, আজকাল অনেক বেসরকারি অফিসেও ঘুষ ছাড়া কাজ হয় না। ফাইল নড়ে না সহজে। বলা বাহুল্য, ঘুষ যিনি দেন এবং ঘুষ যিনি নেন, উভয়েই কোনো না কোনোভাবে উপকৃত হন। তবে এই সংস্কৃতি দ্বারা চূড়ান্তভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয় দেশ ও সমাজ। আলোচ্য ঘটনায় ঘুষের অঙ্ক নিয়া বনিবনা না হওয়ায় কিংবা কেহ ভাগ না পাওয়ায় হয়তো এমন খবর চাউর হইয়াছে। আবার উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস ব্যবহার না করিয়া কেন একটি রিসোর্ট ভাড়া নিয়া অডিট কার্যক্রম পরিচালনা করা হইল এই নিয়া যাহারা প্রশ্ন তুলিয়াছেন, তাহাদেরও যে কোনো মতলব নাই, তাহাও হলফ করিয়া বলা যায় না।
প্রকৃতপক্ষে আমাদের মতো তৃতীয় বিশ্বের দেশে ঘুষ একটি সামাজিক ব্যাধির নাম। শুধু শিক্ষা খাত নহে, অফিস-আদালত, ব্যবসা-বাণিজ্যসহ প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রেই আমাদের কোনো না কোনো সেবা পাইতে ঘুষ বা উপরি দিতে হয়। আজকাল চাকরি নামক সোনার হরিণ ধরিতে হইলেও ঘুষ নামক এই বস্তুটির কদর সবচাইতে বেশি। বিভিন্ন চাকরিতে ঘুষের রেট কত তাহাও আজ অনেকের মুখস্থ। একজন পিয়ন বা ঝাড়ুদার নিয়োগেও আজ কয়েক লক্ষ টাকা ঘুষ দিতে হয়। পুলিশসহ বিভিন্ন সরকারি অফিসে শুধু নিয়োগই নহে, বদলি, পদোন্নতি প্রভৃতি ক্ষেত্রেও দিতে হয় ঘুষ। এই ঘুষ দেওয়াটাই যেন আজ নিয়ম এবং না দেওয়াটাই অনিয়ম। কেননা যিনি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে ঘুষ দিয়া চাকুরি, বদলি বা পদোন্নতির সুবিধা নেন, তিনি ঘুষ না খাইলে তাহার চলিবে কিভাবে? অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায়, প্রশাসনে নিয়ম-শৃঙ্খলার অভাব থাকিলেও ঘুষের চেইন অব কমান্ড ঠিকই বজায় থাকে। এমতাবস্থায় শুধু বিসিএস শিক্ষা ক্যাডারের কর্মকর্তাদের দোষ দিয়া লাভ নাই। ঘুষ আসলে কোথায় নাই, তাহাই নিশ্চিত করিয়া বলা মুশকিল। ফলে আমাদের অবস্থা হইয়াছে এমন যে, সর্বাঙ্গে ব্যথা, ঔষধ দিব কোথা। তাহার পরও সর্বাগ্রে উপর হইতে ঘুষ-সংস্কৃতি বন্ধের শুরু করা প্রয়োজন, যাহাতে নিম্নদিকে ইহার দ্রুত প্রভাব পড়ে। লেজ নহে, আগে মাথার পচন ঠেকানোটাই জরুরি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here