সহযোগিতার নতুন দ্বার উন্মোচিত

0
241

তিন দিনের রাষ্ট্রীয় সফর শেষে ফিরে গেছেন শ্রীলংকার প্রেসিডেন্ট মৈত্রিপালা সিরিসেনা। এ সফরকালে দুই দেশের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে। সিদ্ধান্ত হয়েছে দুই দেশের মধ্যে মুক্ত বাণিজ্যের (এফটিএ), যা শিগগির বাস্তবায়িত হবে। আর এটিই হবে কোনো দেশের সঙ্গে বাংলাদেশের প্রথম মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি। বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী এটিকে গুরুত্বপূর্ণ ব্রেক থ্রু বলে মন্তব্য করেছেন। নিঃসন্দেহে এটি সম্পর্কের নতুন দ্বার উন্মোচন। এর ফলে দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্য দ্রুত বেড়ে যাবে। লাভবান হবে দুই দেশই।
বাংলাদেশ থেকে সুতি বস্ত্র, সোয়েটার, কৃষিজাত পণ্য, পাট ও পাটজাত পণ্য, চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য, কৃষিপণ্য ইত্যাদি শ্রীলংকায় রফতানি হচ্ছে। সে দেশ থেকে আমদানি হচ্ছে নানা ধরনের কেমিক্যাল, রাবার ও প্লাস্টিকের দ্রব্য, টেক্সটাইল ও কাঠের সামগ্রী, তেলসহ নানা পণ্য। দুই দেশের মধ্যে বর্তমানে প্রায় ৮০ মিলিয়ন ডলারের বাণিজ্য রয়েছে। ২০১৫-১৬ অর্থবছরে বাংলাদেশ রফতানি করেছে সাড়ে ৩৫ মিলিয়ন ডলারের পণ্য। পক্ষান্তরে আমদানি হয়েছে ৪৫ মিলিয়ন ডলারের পণ্য। তবে বাংলাদেশের অনুকূলে বাণিজ্য ঘাটতি থাকলেও বাংলাদেশের রফতানি বাড়ছে। লক্ষণীয়, শ্রীলংকায় বাংলাদেশের পণ্যের চাহিদা রয়েছে। বাংলাদেশেও চাহিদা রয়েছে শ্রীলংকার পণ্যের। তাই সঙ্গত কারণে মুক্ত বাজার চুক্তির মধ্য দিয়ে শুল্কসহ সব বাধা দূর হবে, যা হবে উভয় দেশের জন্য সুবিধাজনক।
শ্রীলংকার প্রেসিডেন্টের সফরকালে দুই দেশের মধ্যে কূটনীতিক ও সরকারি কর্মকর্তাদের ভিসাহীন চলাচলের একটি চুক্তি ও ১৩টি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে। সেগুলো হলো কৃষি, উপকূলে জাহাজ চলাচল ও উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে সহযোগিতা, দুই দেশের বিনিয়োগ কর্তৃপক্ষের মধ্যে সহযোগিতা, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ক্ষেত্রে সহযোগিতা, বাংলাদেশের বিএসটিআই ও শ্রীলংকার স্ট্যান্ডার্ডস ইনস্টিটিউশনের (এসএলএসআর) মধ্যে সহযোগিতা, রেডিও-টিভি-চলচ্চিত্রের মধ্যে সহযোগিতাসহ আরও কতিপয় ক্ষেত্রে সহযোগিতা ও সমঝোতা। এক যৌথ বিবৃতিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও প্রেসিডেন্ট মৈত্রিপালা সিরিসেনা ১৪টি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হওয়ায় গভীর সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন। তারা বিস্তৃত অর্থনৈতিক অংশীদারিত্বের সুফল পেতে শুল্ক সহযোগিতা, দ্বৈত কর পরিহার এবং বিনিয়োগ উন্নয়নে দুই দেশের চুক্তি চূড়ান্ত করতে নির্দেশ দিয়েছেন। এ প্রসঙ্গে বলতে চাই, চুক্তি বা সমঝোতাই শেষ কথা নয়- জরুরি হচ্ছে বাস্তবায়ন, দুই দেশের যোগাযোগ বাড়ানো; সেটি সরকারি পর্যায়ে সীমাবদ্ধ থাকলে চলবে না। দুই দেশের জনগণের মধ্যে যোগাযোগ বাড়াতে হবে। সাংস্কৃতিক লেনদেন বাড়াতে হবে।
দুই নেতা উপ-আঞ্চলিক ও আঞ্চলিক সহযোগিতার প্রক্রিয়া গভীরতর করার ব্যাপারে একমত হন। বিমসটেক ও সার্কের আওতায় কাজ করার ওপরও জোর দেন।
দুই নেতার এই সহযোগিতার মনোভাবকে আমরা স্বাগত জানাই। সার্কের বর্তমান অচলাবস্থার অবসান ও গতিশীল করতে দুই দেশের একযোগে কাজ করা জরুরি বলে মনে করি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here