সুন্দরবন থেকে উজাড় হচ্ছে হরিণ, শিকারীরা বেপরোয়া

0
586

উত্তম চক্রবর্ত্তী : বনবিভাগ ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অব্যাহত তৎপরতার মুখেও বন্ধ হচ্ছেনা সুন্দরবনের হরিণ শিকার। নানাবিধ প্রতিকুলতা ও বাঘের হাত থেকে রেহাই মিললেও শিকারীদের  হাত থেকে নিস্তার মিলছেনা তাদের। প্রতি নিয়ত সুন্দরবন উপকূল ও আশপাশের বাজার এলাকায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে হরিণের মাংশ সহ বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ উদ্ধারের ঘটনা অন্তত তারই ইঙ্গিত দিচ্ছে। বেপরোয়া শিকারী চক্র বিভিন্ন সময় চোরা পথে বা বিভিন্ন ছদ্মাবরণে বনে ঢুকে ফাঁদ, বিষটোপ, গুলি করে ও ঘুমের ওষুধ দিয়ে প্রতিনিয়ত শিকার করছে হাজার হাজার মায়াবী চিত্রল হরিণ। এমন পরিস্থিতিতে বনবিভাগের দাবি, শিকারীদের  ধরতে  বা শিকার প্রতিরোধে তাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। তবে বাস্তবতা বলছে ভিন্ন কথা। স্থানীয়দের  দাবি, দেশের অভ্যন্তরে এক শ্রেণির ভোজন বিলাসীদের  কাছে হরিণের মাংসের ব্যাপক কদর রয়েছে। তাছাড়া দেশে ও দেশের বাইরেও  রয়েছে হরিণের চামড়া, শিং ও মৃগনাভি কস্তুরির ব্যাপক চাহিদা। বিশেষ করে অনেক সৌখিন মানুষেরা  তাদের  বাড়ির দেয়ালে হরিণের চামড়া ও শিং টানিয়ে রাখতে পছন্দ করেন। এর জন্য তারা চড়ামূল্য দিতেও দ্বিধাবোধ করেন না। ফলে শিকারিরাও  অর্থের লোভে হরিণ শিকারে বেপরোয়া হয়ে উঠছে। জানা যায়, গত ৩ মে ভোরে কোস্টগার্ড পশ্চিম জোন (মংলা সদর দফতর) সুন্দরবন সংলগ্ন কয়রা ও আংটিহারা এলাকা থেকে দু’টি নৌকাসহ ৫১ কেজি হরিণের মাংস ও হরিণ শিকারের ফাঁদ জব্দ করেছে। কোস্টগার্ডের  অপারেশন কর্মকর্তা  লে. কমান্ডার এম ফরিদুজ্জামান বলেন, ‘হরিণের মাংস ও হরিণ শিকারের ফাঁদ জব্দ করা হলেও এর সঙ্গে জড়িতরা পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছে। এছাড়া সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগের বাগেরহাট সদর রেঞ্জ কর্মকর্তা মো. শমসের আলী বলেন, গত রোববার বনবিভাগ ও পুলিশ যৌথ অভিযান চালিয়ে বাগেরহাটের রামপাল উপজেলার বাইনতলা ইউনিয়নের  বারুইপাড়া গ্রামের জনৈক মহব্বত আলী শেখের বাগান থেকে পলিথিনে বরফ দেওয়া অবস্থায়  সুন্দরবনের চারটি চিত্রা হরিণের মাথাসহ ৮৫ কেজি মাংস উদ্ধার করে। এসময়  পাশের একটি খাল থেকে চোরা শিকারিদের ব্যবহৃত সুন্দরবনে ঢোকার অনুমোদিত  (বিএলসি) ভুক্ত দু’টি নৌকা জব্দ করা হয়। তবে শিকারি বা পাচারের সাথে জড়িতদের কাউকে তারা আটক করতে পারেনি। বনসংলগ্ন এলাকাবাসীরা জানায়, হরিণের মাংস বিভিন্ন এলাকায় বিক্রি ও পৌছে দেয়ার জন্য ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেট রয়েছে। তারা  পেশাদার শিকারিদের অগ্রিম মোটা অংকের টাকা  দাদন দিয়ে মাংস এনে তা বিভিন্ন কৌশলে বিক্রি করে থাকে। এজন্য  স্থানীয় কয়েকটি গ্রামে হরিণের মাংস বেচাকেনার নিয়মিত গোপন হাট বসে বলেও জানান তারা। সেখানে  প্রতি কেজি হরিণের মাংস বিক্রি হচ্ছে ৫ থেকে ৬শ’ টাকায়। মংলার জয়মনি, চিলা, বাঁশতলা, বৌদ্ধমারী, কাটাখালী, মোড়েলগঞ্জ, শরণখোলা, ধানসাগর, বগি, দাকোপের ঢাংমারী, বানিশান্তা, খাজুরা, সাতক্ষীরা, খুলনার কয়রা, আংটিহারাসহ সুন্দরবন সংলগ্ন গ্রামগুলোতে গোপনে বসে ঐসকল হাট। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জানান,‘বর্তমানে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ফাঁদ, বিষ, টোপ, এমনকি ক্ষেত্রবিশেষে আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার করেও হরিণ শিকার চলছে। কোন কোন  সময় শিকারি চক্র জেলেদের ছদ্মবেশে বনের গহীনে গিয়ে হরিণ শিকার করে তা গোপনে লোকালয়ে নিয়ে আসে। পরে হরিণের মাংস, চামড়া, শিং কৌশলে দেশের বিভিন্ন স্থানে পাচার করা হয়।নাম প্রকাশ না করার শর্তে মংলা সহ খুলনার কয়রা, সাতক্ষীরার শ্যামনগর এলাকার অনেকেই বলেন,‘সংঘবদ্ধ শিকারি চক্রের লোকালয়ে নির্দিষ্ট এজেন্ট নিয়োজিত রয়েছে। এসব এজেন্টের মাধ্যমে ৩ থেকে ৪শ’ টাকা কেজি দরে হরিণের মাংস সংগ্রহ করা যায়। পরিস্থিতি ভাল থাকলে  টাকার পরিমাণ বেশি থাকলে এজেন্টরা সরাসরি রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে গিয়ে হরিণের মাংস পৌঁছে দিয়ে আসে।’খুলনা বিভাগীয় বন কর্মকর্তা চৌধুরী আমির হোসেন  বনবিভাগের জনবল সংকট ও আধুনিক অস্ত্রেও অপ্রতুলতার কথা স্বীকার করে বলেন, তারা  হরিণের মাংস বিক্রি বা পাচারের খবর পেলেই তাদের আটক করে আইনের আওতায় আনেন। তিনি বলেন, বনকর্মীদের কাজের গতি ও আধুনিক বন ব্যবস্থাপনার  সুন্দরবনকে একটি সিস্টেমের (জিপিএস) আওতায় এনে ডিজিটালাইজড করা হয়েছে। ইতোমধ্যে  প্রাথমিকভাবে সুন্দরবনের চাঁদপাই রেঞ্জে এর কার্যক্রম শুরু হয়েছে। সব রেঞ্জেই অতিদ্রুত এ ব্যবস্থা চালু হবে বলেও জানান তিনি। এটি চালু হলে বনকর্মীদের কাজের গতিবিধি সহ শিকারি চক্রের গতিবিধিও স্যাটেলাইটের মাধ্যমে পর্যবেক্ষণ করা সম্ভব হবে। কঠোর আইন ও অব্যাহত অভিযানেও বন্ধ হচ্ছেনা হরিণ শিকার। ফলে সুন্দরবন থেকে ক্রমশ দ্রুত গতিতে কমতে শুরু করেছে মায়াবি চিত্রল হরিণ। তবে সদর রেঞ্জের সহকারী বন সংরক্ষক (এসিএফ) মেহেদীজ্জামানের কাছে জানতে চাইলে তিনি কোন প্রশ্নের সরাসরি উত্তর নাদিয়ে উল্টো প্রশ্ন ছুঁড়ে দেন। বাগেরহাট পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মো. সাইদুল ইসলাম বলেন, অভিযানকালে জব্দকৃত নৌকা থেকে বন বিভাগের দেওয়া দুইটি বিএলসি পাশ পাওয়া গেছে। পাশ দুটি বারুইপাড়া গ্রামের মৃত শেখ আ. গনির ছেলে শেখ নজরুল ইসলাম এবং পিরোজপুরের পারেরহাটের টগরা গ্রামের ইয়াকুব হাওলাদারের ছেলে মহারাজ হাওলাদারের নামে ইস্যু করা। এব্যাপারে বন আদালতে ৩ জনের নামে একটি মামলা করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here