স্বাধীনতার সুযোগ কাজে লাগাইতে হইবে

0
221

আজ আমরা স্বাধীনতার ৪৭তম বর্ষে পদার্পণ করিতেছি। একটি জাতির ইতিহাসে ইহা খুব একটি দীর্ঘ সময় না হইলেও এই পাঁচ দশকে জাতিকে নানান উত্থান-পতন, চড়াই-উতরাই আর বিপদসংকুল পথ ও বাধা অতিক্রম করিতে হইয়াছে। ১৯৭১-এ দেশের মানুষ ২৩ বত্সরের রাজনৈতিক পথ পরিক্রমণের মধ্য দিয়া এমন এক মোহনায় আসিয়া উপস্থিত হইয়াছিল যাহা কিনা বীরত্ব আর বীর্যবানতার অনন্যসাধারণ বৈশিষ্ট্যে সমুজ্জ্বল হইয়া রহিয়াছে। সুদীর্ঘ রাজনৈতিক সংগ্রাম-সাধনার পথে পথে বাংলার মানুষ যে মহিমান্বিত আলোক রেখা ফুটাইয়াছে, বর্ণাঢ্য জীবনের সমারোহ জাগাইয়া তুলিয়াছে আর ফলে-ফুলে সুশোভিত এবং অগ্নিগর্ভ সূর্য সম্ভাবনায় ভাস্বর এক গৌরবোজ্জ্বল জাতির বীরত্বগাথা রচনা করিয়াছে উহার তুলনা মেলা ভার! উপমহাদেশে আমরা বাঙালিরা, সেই ব্রিটিশ যুগেও চিন্তারাজ্যের অগ্রনায়ক হিসাবে পরিচিত ছিলাম। শোষণ-বঞ্চনা আর নিপীড়ন-নির্যাতনের মাধ্যমে আমাদের সেই অতিকায় ভাবমূর্তিটিকে ধরার ধূলায় মিশাইয়া দেওয়ার জন্য পাকিস্তান আমলে যে কূটচাল আর হীন ষড়যন্ত্র চালানো হইয়াছিল উহার বিরুদ্ধে শেরেবাংলা এ কে ফজলুল হক, হোসেন শহীদ সোহ্রাওয়ার্দী ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান গণমানুষের সংগ্রামের মহাকাব্য রচনাই শুধু নহে, সেই সাধনাকে মঞ্জিলে মকসুদে পৌঁছাইয়া দিতে প্রাণপাত করিয়াছেন।

আমাদের স্বাধীনতা তাই কাহারও দয়ার দানে অর্জিত হয় নাই, ইহা অর্জনের জন্য রক্তের নদী পার হইতে হইয়াছে, লাখো মা-বোনের সম্ভ্রম বিসর্জিত হইয়াছে, মানবতার চরমতম লাঞ্ছনা ও অবমাননা সহ্য করিতে হইয়াছে। একটি অসাম্প্রদায়িক, প্রগতিবাদী গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ সৃষ্টির লক্ষ্যকে সামনে রাখিয়া বাংলার মানুষ অকাতরে বুকের তাজা রক্ত ঢালিয়া দিয়াছে একাত্তরে।

একাত্তর তাই আমাদের জাতিসত্তার ইতিহাসে এক অনন্যসাধারণ বৈশিষ্ট্যে ভরপুর। আমরা সশস্ত্র সংগ্রামের মাধ্যমে অন্ধকারের বক্ষ বিদীর্ণ করিয়া স্বাধীনতার রক্তিম সূর্যটিকে ছিনাইয়া আনিয়াছি আর ইহার পূর্বে নিয়মতান্ত্রিক উপায়ে অন্যায় শোষণ বঞ্চনা-বৈষম্যের অবসান ঘটাইতে চাহিয়াছি। এই ভূমিকা দেশবাসীকে সবিশেষ গৌরব দান করিয়াছে; বিজয়ী করিয়াছে। একাত্তর-পর্বে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের উচ্চতা গিরিরাজের মাথা ডিঙাইয়া গিয়াছিল, সারাদেশে ঐ একটি মুজিবুরের কণ্ঠ হইতেই লক্ষ মুজিবরের কণ্ঠস্বরের ধ্বনি, প্রতিধ্বনি তুলিয়া ভিসুভিয়াসের প্রচণ্ড নাদরূপে মূর্ত হইয়া উঠিয়াছে। মৃত্যু-ধ্বংস, আবাল-বৃদ্ধ-বনিতার অশ্রুধারা, বীরের সঙ্গিনের বিপুল গর্জন আর গণমানুষের আত্মবিসর্জনের মহোত্সব ছিল একাত্তরে আমাদের শক্তির উত্স। আমরা অভূতপূর্ব ত্যাগের বিনিময়ে সেদিন স্বাধীনতা অর্জন করিয়াছিলাম।

মনে রাখা দরকার যে, স্বাধীন দেশ পরিচালনার ক্ষেত্রে ঔপনিবেশিক আমলের চিন্তা-চেতনা অবশ্যই পরিত্যাজ্য। পরাধীন আমলের ‘ধ্বংসের বুকে হাসুক মা তোর সৃষ্টির নব পূর্ণিমা’ স্বাধীন দেশের মানুষের নীতি-কৌশল হইলে স্বাধীনতাই যে বিপন্ন হইবার জোগাড় হয়, ইহার ভূরি ভূরি প্রমাণ আছে। তাই পরাধীন যুগ আর স্বাধীন যুগের রাজনীতিকেও স্বতন্ত্র হইতে হয় বৈ কি! এই কথাটি আমাদের রাজনৈতিক অঙ্গনের সংশ্লিষ্ট সকলে যত তাড়াতাড়ি অনুধাবন করিবেন, ততই মঙ্গল। স্বাধীনতা একটি দেশের নাগরিক সাধারণের জন্য যে অফুরন্ত সুযোগ সৃষ্টি করে উহাকে আন্তরিকভাবে, নিষ্ঠা ও দেশপ্রেমের সহিত কাজে লাগানোই হওয়া উচিত সকলের কর্তব্য ও আরাধ্য। আর তখনই কেবল স্বাধীনতা অর্থবহ হইয়া উঠিবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here