স্বাস্থ্য সুরক্ষায় পরিচ্ছন্ন নগরী

0
258

বরিশাল সিটি করপোরেশনের একটি ভাগাড়ের বর্জ্যজনিত দুর্ভোগে ক্রমশ দুর্বিষহ হইয়া উঠিতেছে নগরের অন্যতম ঘনবসতিপূর্ণ তিন নম্বর ওয়ার্ড কাউনিয়ার জনজীবন। উদ্ভূত পরিস্থিতি এতটাই অসহনীয় যে, ভাগাড়ে ফেলা বর্জ্যের দুর্গন্ধ, জঞ্জাল পোড়াইবার ধোঁয়া এবং মশা-মাছির উপদ্রব হইতে বাঁচিবার নিমিত্ত গৃহত্যাগে বাধ্য হইতেছেন অনেক স্থানীয় বাসিন্দা। অন্যদিকে বসবাসকারীদের মধ্যেও অনেকেই আক্রান্ত হইতেছেন শ্বাসকষ্ট, পেটের পীড়া এবং বিভিন্ন ধরনের রোগ-ব্যাধিতে। এমনকি এই বাস্তবতায় ক্ষেত্রবিশেষে এইসকল রোগে আক্রান্ত হইয়া মারা যাইবারও দৃষ্টান্ত রহিয়াছে। বরিশাল বিভাগীয় পরিবেশ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, ইতোপূর্বে জনবসতিপূর্ণ এলাকায় বর্জ্য না ফেলিতে পরিবেশ অধিদপ্তর একাধিকবার সিটি করপোরেশনকে নোটিস প্রদান করে। ইহার প্রেক্ষিতে সিটি করপোরেশন ২০১৪ সালে আধুনিক প্রযুক্তিতে বর্জ্য প্রক্রিয়াজাতকরণের ছাড়পত্র গ্রহণ করে। কিন্তু পরবর্তীতে এই ব্যাপারে তাহাদেরকে কোনো ধরনের উদ্যোগ লইতে দেখা যায় নাই।

জানা যায়, সংশ্লিষ্ট এলাকায় ছয় একর জমি বর্জ্য ফেলিবার জন্য নির্ধারিত হইলেও বর্তমানে তাহা বর্জ্য ফেলিবার পক্ষে যথেষ্ট নহে। তাই ক্রমশ বৃদ্ধি পাইতে থাকা এই বর্জ্য ফেলা হইতেছে আশে-পাশের ব্যক্তি মালিকানাধীন জমিতে। ইহার ফলে বর্ধিত এই ভাগাড়ের ভোগান্তি ও বিড়ম্বনা বাড়িয়াই চলিয়াছে। বিনষ্ট হইতেছে প্রায় ২৫ হাজার এলাকাবাসীর স্বাভাবিক জীবনযাত্রা। তাহা ছাড়া একই কারণে বিঘ্নিত হইতেছে অত্র এলাকায় ভাগাড়ের চতুর্দিকে অবস্থিত বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং ধর্মীয় উপাসনালয়ের প্রাত্যহিক কর্মকাণ্ড। স্বভাবতই অনভিপ্রেত এই পরিস্থিতির দায় সর্বাগ্রে বর্তায় সংশ্লিষ্ট সিটি করপোরেশনের উপর। কেননা উদ্ভূত পরিস্থিতি আমাদেরকে এই কথাই জানান দেয় যে, ভাগাড় স্থাপনের বিষয়টি মোটেই সুপরিকল্পিত ছিল না বা সেইখানে দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনার ঘাটতি ছিল। যদি ব্যাপারটি সুপরিকল্পিতই হইত, তবে তাহা অবশ্যই ক্রমবর্ধমান বর্জ্য ব্যবস্থাপনার সহিত সঙ্গতিপূর্ণ হইত।

স্বাস্থ্য সুরক্ষা এবং স্বাস্থ্যসম্মত জীবন-যাপনের জন্য পরিচ্ছন্ন নগরীর কোনো বিকল্প নাই। তাই আমাদের প্রত্যাশা, সুষ্ঠু বর্জ্য ব্যবস্থাপনার ব্যাপারে অবিলম্বে বরিশাল সিটি করপোরেশন উদ্যোগী হইবেন। হাজার হাজার মানুষের দুর্ভোগ দূর করিবেন। পাশাপাশি বর্জ্য ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে গ্রহণ করিবেন যুগোপযোগী, পরিবেশবান্ধব ও দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা। তাহা ছাড়া বর্জ্যকে প্রক্রিয়াজাত করিয়া পুনরায় ইহা কিভাবে কাজে লাগানো যায়, এই ব্যাপারেও পরিকল্পনা গ্রহণ করা যাইতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here