হামলাকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিন

0
218

ফেসবুকে কথিত ধর্মীয় কটূক্তির জের ধরিয়া সংখ্যালঘু সমপ্রদায়ের ওপর হামলার ঘটনা নূতন নহে। ইহার আগে ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ বিভিন্ন স্থানে এমন ঘটনা ঘটিলেও আমরা ইহা হইতে শিক্ষা গ্রহণ করি নাই। গত শুক্রবার রংপুরের গঙ্গাচড়ায় যাহা ঘটিয়াছে তাহা অত্যন্ত দুঃখজনক। ফেসবুকের কথিত স্ট্যাটাসকে কেন্দ্র করিয়া হিন্দু সমপ্রদায়ের বাড়িঘর ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটিয়াছে। আগুন দেওয়া হইয়াছে দুইটি মন্দিরেও। শুধু তাহাই নহে, হামলাকারীরা ১৫-২০টি বাড়ির গরু-ছাগল, হাঁস-মুরগি লুটপাট করিয়াছে। ধান, গোলাঘর ও খড়ের গাদায় আগুন দিয়াছে। ছররাগুলি ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করিয়া পুলিশকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনিতে হয়। অথচ যাহাকে কেন্দ্র করিয়া এই তুলকালাম ঘটনা, তিনি এই এলাকায় ১০ বত্সর ধরিয়া থাকেন না। বর্তমানে তিনি নারায়ণগঞ্জে কবিরাজি করেন বলিয়া জানা যায়। ধারণা করা হইতেছে, তাহার মোবাইল ফোন ব্যবহার করিয়া উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে আপত্তিকর স্ট্যাটাস দেওয়া হইয়াছে। তাহার ভাইয়ের দাবি হইল, সে অশিক্ষিত। সুতরাং তাহার পক্ষে এই ধরনের স্ট্যাটাস দেওয়া আদৌ সম্ভব কিনা তাহা লইয়া সন্দেহ-সংশয় দেখা দেওয়াটাও অমূলক নহে।

রংপুরের এই সহিংস ঘটনার আমরা তীব্র নিন্দা জানাই। ইহার জন্য যাহারা প্রকৃতপক্ষে দায়ী তাহাদের অবশ্যই খুঁজিয়া বাহির করিয়া আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে হইবে। এখানে উল্লেখ্য যে, গত কয়েকদিন ধরিয়া এলাকায় উত্তপ্ত পরিস্থিতি বিরাজ করিলেও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কেন যথাসময়ে যথোচিত ব্যবস্থা গ্রহণ করিল না তাহা আমাদের বোধগম্য নহে। আবার হামলাকারীদের পরিকল্পনা সম্পর্কে জানিতে পারিলেও তাহা প্রতিহত করিতে কেন কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া হয় নাই, সেই প্রশ্ন উঠাও স্বাভাবিক। অন্যদিকে ফেসবুকে যেকোনো ধর্ম সম্পর্কে কটূক্তি করা নিঃসন্দেহে গর্হিত অপরাধ। এই ধরনের ঘটনা ঘটিবার পর তাত্ক্ষণিকভাবে ও দ্রুত ব্যবস্থা নিতে না পারিলে ভবিষ্যতেও যে ইহার পুনরাবৃত্তি ঘটিবে না তাহা নিশ্চিত করিয়া বলা যায় না। ইত্তেফাকে প্রকাশিত এই সংক্রান্ত খবর হইতে বোঝা যায়, ইহার পিছনে স্থানীয় রাজনৈতিক দলের নেতা-কর্মীদের ইন্ধন রহিয়াছে। তাহারা পরিকল্পিতভাবে মুসল্লিদের এই ব্যাপারে উত্তেজিত করিয়া তোলে বলিয়াও অভিযোগ উঠিয়াছে। এই ঘটনায় ইতোমধ্যে গঠিত তদন্ত কমিটির এই ব্যাপারে অনুসন্ধান চালানো প্রয়োজন।

সর্বশেষ খবর অনুযায়ী এই ঘটনায় চার ‘ইন্ধনদাতা’কে চিহ্নিত করিয়াছে পুলিশ। তন্মধ্যে একজনকে গ্রেফতার করা হইয়াছে। পুলিশসহ অনেকে আশঙ্কা করিতেছেন যে, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করিয়া অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির অংশ হিসাবে ঘটানো হইয়াছে এই ঘটনা। আগামী দিনগুলিতে এই প্রবণতা আরো বাড়িতে পারে। তাই ফেসবুকসহ যেকোনো সামাজিক মাধ্যমে আপত্তিকর মন্তব্যের ব্যাপারে বিশেষ সতর্কতা অবলম্বন করা আবশ্যক। এদিকে ফেসবুকে দেওয়া তথাকথিত ধর্ম অবমাননার স্ট্যাটাসটি খুঁজিয়া পাওয়া যায় নাই বলিয়া বলা হইতেছে। অর্থাত্ বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়াইয়া পরিকল্পিতভাবে যদি কেহ এই হামলার ঘটনা ঘটাইয়া থাকে তাহা হইলে তাহাদের অবিলম্বে গ্রেফতার করিয়া দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হইবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here