মণিরামপুরের চারিদিকে পানি আর পানি, বাড়িঘর ছেড়ে আশ্রয় নিয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও রাস্তায়, মিলছে না ত্রান

0
310

উত্তম চক্রবর্ত্তী : বিগত কয়েক বছরের ন্যায় এবারও পানিতে একাকার হয়ে গেছে মণিরামপুর উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়ন। ভেঁসে গেছে মাছের ঘের ও পুকুর পুষ্কুনি। নষ্ট হয়েছে ক্ষেতের ফসল ধান, পাটসহ সকল প্রকার শাকসবজি। বাড়িঘরে পানি প্রবেশ করাই অনেকেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও রাস্তার উপর আশ্রয় নিয়েছে, মিলছেনা ত্রান। মণিরামপুর উপজেলার শ্যামকুড়, দূর্বাডাঙ্গা, চালুয়াহাটী, ঝাঁপা , মশ্বিমনগরসহ কয়েকটি ইউনিয়ন পানিতে একাকার হয়ে গেছে। এ সকল ইউনিয়নের কয়েকটি কাঁচা,পাঁকা রাস্তার উপর ৩/ ফুট পানি থাকায় ভারী ও হাল্কা যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। এদিকে উপজেলার চালুয়াহাটী ইউনিয়নের রতনদিয়া, গৌরীপুর, রতেœশ্বরপুর, ধোপাডাঙ্গী, গোপীকান্তপুর সহ কয়েকটি গ্রামে এত বেশি পরিমান পানি উঠেছে যে অধিকাংশ পরিবার বাড়িঘর ছেড়ে নেংগুড়াহাট মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও ফাজিল মাদ্রাসায় আশ্রয় নিয়েছে। তবে যারা এখনও ঘরবাড়ি ছেড়ে নিরাপদ আশ্রয়ে আসেনি তারা অনেকেই জানিয়েছে, তাদেরকে চলে আসা ছাড়া কোন উপায় নেই। কারন পানি বিষক্ত হওয়ায় চলাফেরার কারনে হাতে পায়ে চুলকানি ও ঘা পাচড়া হচ্ছে। এ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল হামিদ সরদার জানান, তার ইউনিয়নের ৬/৭ টি গ্রামের মানুষ পানি বন্ধি হয়ে পড়েছে। অনেকই বাড়িঘর ছেড়ে রাস্তার উপর ও শিক্ষা প্রতিষ্টানে আশ্রয় নিয়েছে। নেংগুড়াহাটের দুটি প্রতিষ্ঠানে অনেক পরিবার আশ্রয় নিযেছে। আমি ব্যক্তিগত ভাবে তাদেরকে সামান্য কিছু দিয়ে সহয়তা করেছি। সরকারী ভাবে কোন সাহায্য সহানুভতি এখনও পায়নি। পানি বন্ধি রতনদিয়া গ্রামের রবিউল ইসলাম ও ছাত্রলীগ নেতা রাজু আহমেদ জানান, ইউনিয়নে কয়েকটি গ্রাম দীর্ঘদিন ধরে পানি বন্ধি হলেও সাহায্যের হাত বাড়াতে সরকারী ও বেসরকারী পর্যায়ের কোন লোক এখনও পর্যন্ত আসেনি। পানি আর পানি তাই অনেক গরীব অসহায় পরিবারের লোকজনের কর্ম না থাকায় তারা পরিবার পরিজন নিয়ে দূর্বিসহ ভাবে জীবন যাপন করছে। এদিকে সর্বোচ্ছ দুর্ভোগে পড়েছে শ্যামকুড় ইউনিয়নের সকল মানুষ। কারন বিগত এক যুগ ধরে এই দূর্যোগের কবলে পড়তে হয়েছে তাদেরকে। ইউনিয়নের এক তৃতীয়াংশ পানিতে এমন অবস্থা হয়েছে যে নিরাপদ আশ্রয়ের জন্য এক বৃন্দ মাটি পর্যন্ত মেলাতে পারছেনা তারা। পানির সাথে লড়াই করে টিকে থাকতে হচ্ছে ইউনিয়নের সকল মানুষকে। ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান মনি জানান, ইউনিয়নের সকল মানুষ এত বেশি পরিমান দূর্ভোগ পোহাচ্ছে যে চোখে দেখার মত নয়। কারন হাটু ও মাজা পানি ঠেলে অনেকের বাড়ি ঘরে যাচ্ছে, আবার অনেকেই ঘরবাড়ি ছেড়ে রাস্তার উপর ও নিকটস্থ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে আশ্রয় নিয়েছে। তিনি আরো জানান, আমার ইউনিয়নের প্রায় সব গুলো গ্রামে পানি উঠেছে। কোন একটি মাঠে কোন ফসল নেই। সব ফসলই পানির নীচে। ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের পাশে নিজে যে টুকু পারছি তা করছি। একই অবস্থা হয়েছে উপজেলার আরো কয়েকটি ইউনিয়নের অনেক গুলো গ্রাম। নেই কোন বিল ও মাঠের আমন ফসল ও শাকসবজির ক্ষেত। সব পানিতে থই থই করছে। উপজেলার পশ্চিমাঞ্চল তথা রাজগঞ্জ অঞ্চলের সকল বিলের আমন ফসল নষ্ট হয়ে গেছে। ভেঁসে গেছে মাছের ঘের। ঝাঁপা ও মশ্বিমনগর ইউনিয়নের নিচু অঞ্চল এখনও পানিতে হাবুডুবু খাচ্ছে। এ অঞ্চলে সব থেকে বেশি পরিমান র্দভোগে পড়তে হয়েছে পাট চাষিদের। কারন ফলানো পাট যখনই কেটে পানিতে দেওয়া হবে তখই পানিতে নৈরেকার। পাট ক্ষেতে গলা সমান পানি। তাই পাট চাষিরা এখন গলা সমান পানিতে নেমে পাট কেটে পানিতে ডুবাতে শুরু করেছে। পাট চাষি আহমাদ আলীর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, ফলানো পাট কেমন করে ফেলাই রাখি । তাই কৃষেনদের দ্বিগুন মূল্যে দিয়ে এনে সারা দিন পানিতে ভিজিয়ে পাট কাটানো হচ্ছে। কৃষেন আলী হোসেন বলেন, পানি এত পরিমান বিষক্ত হয়েছে যে পানিতে নামার কায়দা নেই। তারপরও চারিদিক পানিতে ডুবে যাওয়ায় কাজ নেই, তাই কষ্ট হলেও পেঁটের দায়ে জীবন বাজি রেখে কাজ করছি। এদিকে মণিরামপুরের আশপাশের কয়েকটি ছোটখাটো নদ-নদী। এ সকল নদের মধ্যে উপজেলার পশ্চিমাঞ্চল দিয়ে প্রবাহিত কপোতাক্ষ নদ। এই নদে পলি জমা ও নদের পাড় ও ভীতর দখল করে মাছের ঘের তৈরী করাই বর্ষার মৌসুমে বৃষ্টির পানি সঠিক ভাবে নিষ্কাশন হতে পারে না। যার কারনে বিগত কয়েক বছর ধরে গোটা মণিরামপুর পানিতে প্লাবিত হচ্ছে। এদিকে বর্তমান সরকার গত বছর কপোতাক্ষ নদের পলি অপসারনের ব্যবস্থা গ্রহন করাই এ বছর পানি অনেকটাই নিষ্কাশন হয়েছে। যার কারনে অন্যবারের তুলনায় এ বছর নদের আশপাশের গ্রাম ও মাঠঘাটে পানি উঠলেও ক্ষতির পরিমান রয়েছে অনেক কম। এবিষয়ের্ জানতে চাইলে, কপোতাক্ষ বাঁচাও আন্দোলন কমিটির নেতা হাফিজুর রহমান দুলু ও যশোর জেলা মানবাধিকার সংগঠনের নেতা মামুনুর রশিদ লালটু বলেন, সরকার নদের পলি অপসারনের জন্য সকল প্রকার ব্যবস্তা গ্রহন করলেও খুয়ে খুয়ে চলছে কাজটি। কাজে যেমনটা দিয়েছে ফাঁকি তেমনটি অর্থ হয়েছে লুটপাঠ। যার কারনে নদের অনেক স্থানে পলি মাটি রয়ে গেছে। ফলে ঐ স্থান উচু হওয়ায় সুষ্ঠ ভাবে নদ দিয়ে পানির স্রোত বইছে না। যার কারনে এ বছর নদের পাড়ের নীচু এলাকাসহ অনেক গ্রাম পানিতে ডুবে গেছ্।ে এদিকে উপজেলার মাঝ দিয়ে বয়ে যাওয়া হরিহর নদী ও পূর্ব পাশের ভবদাহ সংলগ্ন স্থান দিয়ে বয়ে যাওয়া আরো একটি নদী। এ সকল নদী পাশ্ববর্তী কেশবপুর উপজেলার ভীতর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে দক্ষিনের বড় বড় নদীতে মিলিত হয়েছে। এদিকে কেশবপুর উপজেলা থেকে শুরু করে দক্ষিনে ডুমুরিয়া উপজেলার খর্নিয়া বাজার এলাকা পর্যন্ত নদীর পুরোটাই পলি জমে গেছে বলে বিভিন্ন সুত্রে জানায়। যার কারনে বর্ষার মৌসুমে মণিরামপুর ও কেশবপুর উপজেলার পানি ঐ নদী দিয়ে প্রবাহিত হতে না পারাই প্রতি বছরের ন্যায় এ বছর এ দুটি উপজেলা পানিতে একাকার হয়ে গেছে। এদিকে বর্ষার মৌসুমে মণিরামপুর উপজেলার সকল অঞ্চল পানি বন্ধি হওয়ার কারন ও তার প্রতিকার জানতে সুধীজন ও সচেতন মহলের কাছে জানতে চাইলে তারা অনেকই নদের নাব্যতা হারানোকে প্রধান কারন হিসাবে আখ্যায়িত করেছেন আবার অনেকই অপরিকল্পিত ভাবে মাছের ঘের তৈরী করাকে দায়ী করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here