খালেদুর রহমান টিটোর জীবনাবসান

0
163

নিজস্ব প্রতিবেদক : তিন বন্ধুর শেষ বন্ধুটিও আজ চির বিদায় নিয়ে চলে গেলেন না ফেরার দেশে। বলছিলাম তরিকুল আর রাজু দার আরেক পরম বন্ধু সাবেক মন্ত্রী খালেদুর রহমান টিটোর (৭৬) কথা। আজ রবিবার দুপুর ১২ টার দিকে তিনি যশোর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থান মারা যান (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন)।

তার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা শহিদুল ইসলাম।

তিনি জানান, যশোর-৩ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য খালেদুর রহমান টিটো দীর্ঘদিন ধরে ফুসফুসে ইনফেকশন জনিত রোগে আক্রান্ত ছিলেন।

সম্প্রতি তাকে যশোর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থা খারাপ হলে তাকে আইসিইউতে নেয়া হয়। তবে আজ দুপুর ১২টার দিকে তিনি সেখানে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

খালেদুর রহমান টিটোর বড় ছেলে মাশুক হাসান জয় জানান, কিছুদিন ধরে তার বাবা অসুস্থ ছিলেন। গত বৃহস্পতিবার (৭ জানুয়ারি) তাকে যশোরের সিএমএইচে ভর্তি করা হয়। সেখানে আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোববার দুপুর ১টা ১৯ মিনিটে তিনি মারা যান।

মাশুক হাসান জয় আরও জানান, হাসপাতাল থেকে মরদেহ শহরের ভোলাট্যাংক রোডের বাসভবনে নেয়া হবে। এরপর জানাজা ও দাফনের সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

পারিবারিক সূত্র জানায়, কিছুদিন ধরেই সাবেক প্রতিমন্ত্রী খালেদুর রহমান টিটো অসুস্থ ছিলেন। গত ১৯ নভেম্বর তিনি নিজ বাসভবনে হঠাৎ গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালের করোনারি কেয়ার ইউনিটে ভর্তি করা হয়। পরদিন এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে ঢাকার বারডেম হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে পরীক্ষা-নীরিক্ষার পর ধরা পড়ে তার ফুসফুসে পানি জমেছে। সেই অনুযায়ী চিকিৎসা দেয়ার পর তার অবস্থার উন্নতি হয়। পরে তিনি বাড়ি ফিরে আসেন। এরপর বাড়িতেই তার চিকিৎসা চলছিল।

কয়েক দিন আগে তিনি আবার অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালের করোনারি কেয়ার ইউনিটে ভর্তি করা হয়। বৃহস্পতিবার সেখান থেকে তাকে যশোর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) নিয়ে যাওয়া হয়। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি সেখানে আইসিইউতে ছিলেন।

তিনি তিন ছেলেসহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন, শুভাকাঙ্ক্ষী, কর্মী ও সমর্থক রেখে গেছেন।

এদিকে তার মৃত্যুতে শোক জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন যশোর জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারন সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা ইয়াকুব কবির।