ক্রিকেটে অসাধারণ ও বিস্ময়কর এক জয়

0
195

বাংলাদেশ ক্রিকেট দল চলমান চ্যাম্পিয়ন্স লিগের গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে অসাধারণ ও অবিশ্বাস্য এক জয়লাভ করিয়াছে। নিউজিল্যান্ডের ২৬৬ রানের লক্ষ্যমাত্রাকে সম্মুখে রাখিয়া ব্যাট করিতে নামিয়া শুরুতেই শূন্য রানে আউট হন বাংলাদেশ দলের ব্যাটিং লাইনের অন্যতম স্তম্ভ তামিম ইকবাল। ইহার পর মাত্র ১২ রানের মাথায় স্কোরবোর্ডে দেখা যায় তিন উইকেট এবং ৩৩ রানের মাথায় চার উইকেট। তামিম, সৌম্য, সাব্বির ও মুশফিকের মতো প্রথম সারির ব্যাটসমানদের হারাইয়া বাংলাদেশ যখন কম্পমান, তখনই ত্রাণকর্তা হিসাবে আবির্ভূত হন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান এবং সেনসিবল ক্রিকেটার মাহমুদউল্লাহ। তাহারা পঞ্চম জুটিতে ২২৪ রানের রেকর্ড গড়িলে নিউজিল্যান্ডকে ৫ উইকেটে হারাইয়া অকল্পনীয় জয়লাভ করে বাংলাদেশ। এই দুইজন ব্যাটসমান দায়িত্বশীলতার এক চরম পরাকাষ্ঠা প্রদর্শন করেন। তাহারা উভয়েই করেন সেঞ্চুরি। যাহারা প্রথম দিককার ব্যর্থতাপূর্ণ ব্যাটিং দেখিয়া হতাশায় আর টেলিভিশনের সম্মুখে খেলা দেখিতে বসেন নাই, তাহারা বাংলাদেশের এই ঐতিহাসিক জয়ের মুহূর্ত না দেখিয়া থাকিলে আমাদের ক্রিকেটের বড় কিছুই মিস করিয়াছেন।

এখন বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমিফাইনালে উঠিতে পারিল কি পারিল না ইহা বড় কথা নহে। তবে এই ম্যাচে সাকিব-মাহমুদউল্লাহ যে দুর্দান্ত ব্যাটিং করিয়াছেন তাহা আমাদের ক্রিকেটের রূপকথার অংশ হইয়া থাকিবে। বিস্ময়কর ব্যাপার হইল, ২০০৫ সালের জুনে এই কার্ডিফেই অস্ট্রেলিয়াকে পাঁচ উইকেটে হারাইয়া বাঘের গর্জন শুনিয়াছিল বিশ্ব। ইহার এক যুগ পর সেই কার্ডিফেই পরিণত ও আগের চাইতে অনেক দক্ষ শিকারী বাঘের গর্জন শুনিল সারাবিশ্ব। দুর্বার এই জয়ে ক্রিকেট দুনিয়া বিমুগ্ধ, বিমোহিত। ধারাভাষ্যকার হার্শা ভোগলে, ভারতের কিংবদন্তি ব্যাটসম্যান সৌরভ গাঙ্গুলি, সাবেক ইংলিশ অধিনায়ক মাইকেল ভন, পাকিস্তানের মারকুটে ব্যাটসম্যান শহীদ আফ্রিদি, নিউজিল্যান্ডের সাবেক অধিনায়ক ব্রেন্ডন ম্যাককালাম, অস্ট্রেলিয়ার লেগ স্পিন কিংবদন্তি শেন ওয়ার্ন প্রমুখ বাংলাদেশের এই জয়ের ভূয়সী প্রশংসা করিয়াছেন। গত ওয়ানডে বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে দুর্দান্ত জয়লাভ করিয়া ক্রিকেট বিশ্বকে তাক লাগাইয়া দেয় বাংলাদেশ এবং উন্নীত হয় কোয়ার্টার ফাইনালে। এই জয়ও সেই জয়ের কথা স্মরণ করিয়া দিতেছে আমাদের।

আমরা বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সকল খেলোয়াড়, কোচ ও ম্যানেজারসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে জানাই উষ্ণ অভিনন্দন। অভিনন্দন জানাই তাহাদেরও যাহারা আমাদের ক্রিকেটকে এই পর্যায়ে আনিতে নিরলস শ্রম দিয়াছেন, উদ্ভাবনী চিন্তা ও সুচিন্তিত সিদ্ধান্ত গ্রহণের মাধ্যমে ক্রিকেটসহ অন্যান্য খেলার উন্নয়নে কাজ করিয়াছেন এবং এখনও করিয়া যাইতেছেন। বিশেষত শিক্ষার সহিত খেলাধুলাকে সম্পৃক্ত করিয়া আশির দশকে প্রতিষ্ঠিত হয় বিকেএসপি। ইহার মাধ্যমে আজ শত শত খেলোয়াড় তৈরি হইতেছে। আজকাল বেসরকারি পর্যায়েও গড়িয়া উঠিয়াছে এই ধরনের অনেক প্রতিষ্ঠান। ক্রিকেটসহ বিভিন্ন খেলার মাধ্যমে বাংলাদেশকে বহির্বিশ্বে আরো সফলভাবে তুলিয়া ধরিতে হইলে এইক্ষেত্রে সরকারি-বেসরকারি পৃষ্ঠপোষকতা আরো বাড়াইতে হইবে। আশার কথা হইল, আমাদের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী এই ব্যাপারে দারুণ সজাগ ও সচেতন। পশ্চিমবঙ্গের জনপ্রিয় পত্রিকা আনন্দবাজারের রিপোর্ট অনুযায়ী দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে তিনিই সবচাইতে ক্রিকেটপ্রেমী প্রধানমন্ত্রী। তিনি স্টেডিয়ামে নিজে উপস্থিত থাকিয়াও অনেক সময় ক্রিকেটারদের উত্সাহিত করিয়া থাকেন। এমতাবস্থায় বাংলাদেশ ভবিষ্যতে আরও উন্নতি না করিয়া পারে না। এমনকি বিশ্বকাপ জয়ের আকাঙ্ক্ষার জন্য এখন আর আমাদের স্বপ্নবিলাসী হিসাবে চিহ্নিত করা যাইবে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here