পরাশক্তিগুলিকে সংযত হইতে হইবে

0
333

ইরাক আইএস-মুক্ত হইয়াছে বলিয়া গত শনিবার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিয়াছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী হায়দার আল-আবাদি। গত বেশ কিছুদিন ধরিয়া পিছু হটিতে থাকা আইএসকে সর্বশেষ ইরাক-সিরিয়া সীমান্ত এলাকা হইতে বিতাড়িত করা হইয়াছে বলিয়া জানাইয়াছেন তিনি। আবাদি আইএস-মুক্ত পরিবেশে দেশের পুনর্গঠনে সর্বশক্তি নিয়োগের জন্য দেশবাসীর প্রতি আহ্বানও জানাইয়াছেন। তাহার এই আহ্বান কতখানি বাস্তবায়িত হইবে তাহা লইয়া বিশেষজ্ঞ মহলে দ্বিধাবিভক্তি রহিয়াছে। এইক্ষেত্রে শক্তিমান দেশগুলির ইরাক তথা মধ্যপ্রাচ্য বিষয়ক ভাবনা এবং পরাজিত আইএস-এর নূতন কৌশলের উপরে অনেক কিছু নির্ভর করিবে বলিয়া মনে করা হইতেছে।

নানাপক্ষীয় অভিযানের মুখে আইএস-এর পরাজয় এই বত্সরের মাঝামাঝি হইতেই অনিবার্য মনে হইতেছিল। গত জুন মাস হইতেই এই উগ্রবাদী সংগঠনটি ইরাকে ও সিরিয়াতে তাহাদের বৃহত্ দখলস্থলগুলি হারাইতে শুরু করিয়াছিল। আইএসবিরোধী অভিযানে নিজেদের মতো করিয়া অংশ লওয়া পরাশক্তি রাশিয়া ইরাকি প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার কয়েকদিন পূর্বেই আইএস-এর পরাজয়ের খবর প্রচার করে। যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ হইতেও আইএস-এর পরাজয়ে উল্ল­াস প্রকাশ করা হইয়াছে। তবে দেশটির মতে আইএসবিরোধী লড়াই থামিয়া গেলেও, “এখন অবধি বহু কার্য অসমাপ্ত রহিয়া গিয়াছে”। এই “অসমাপ্ত কার্যগুলি” সমাপন করিয়া আইএসকে সমূলে উত্পাটন অবধি ইরাক ও সিরিয়াতে বহুজাতিক বাহিনীর অবস্থান অব্যাহত থাকিবে বলিয়াও জানানো হইয়াছে। যুক্তরাষ্ট্রের এহেন ঘোষণার মুখে রাশিয়া কী ধরনের সিদ্ধান্ত বা কৌশল গ্রহণ করে তাহা এখন দেখিবার বিষয় হইয়া উঠিয়াছে।

নিকট-অতীতে ইরাক ও আফগানিস্তানে বহুজাতিক বাহিনীর অভিযান ও তত্পরবর্তী কার্যক্রমের ফলাফল বিশ্ববাসী প্রত্যক্ষ করিয়াছে। এই ধরনের সিদ্ধান্তের ফলে এই দুইটি দেশের কোনোটিতেই সহিংসতা ও রক্তপাতের অবসান ঘটে নাই, বরং সন্ত্রাসবাদীরা বিদেশি উপস্থিতিকে ঢাল হিসাবে ব্যবহার করিয়া নিজেদের কর্মকাণ্ডের যৌক্তিকতা হাজির করিয়াছে। অতএব, ইরাকের ক্ষেত্রেও একই পরিস্থিতির পুনরাবৃত্তি ঘটিলে তাহাকে অস্বাভাবিক বলা যাইবে না। সেই ১৯৮০ সালে ইরান আক্রমণের মধ্য দিয়া ইরাকের জন্য স্থায়ী অশান্তির সৃষ্টি করিয়াছেন সাদ্দাম হোসেন। তাহার পরে পৌনে চার দশককাল চলিয়া গিয়াছে; ইরাকে শান্তি ফিরিয়া আসে নাই। বরং একের পর এক বিদেশি শক্তির অভিযানের মধ্যে পড়িয়া অবর্ণনীয় দুঃখ-কষ্টে নিপতিত হইয়াছেন ইরাকিরা। এইদিকে, আইএসকে পরাজিত ঘোষণা করা হইলেও, শক্তিশালী এই সংগঠনটি সহসাই বিলুপ্ত হইয়া যাইবে বলিয়া কেহই খুব একটা মনে করিতেছেন না। ধারণা করা হইতেছে যে, আইএস এখন হয়ত-বা অতীতে অনুসৃত গেরিলা যুদ্ধের কৌশল অবলম্বন করিবে। ইতোমধ্যে তাহার কয়েকটি নমুনাও দেখা দিয়াছে। ২০১৪ সাল হইতে আইএস-এর সহিত সংঘাতে হাজার-হাজার কোটি ডলারের অবকাঠামো নষ্ট হইয়াছে; অর্থনীতি বলিতে গেলে ধ্বংসপ্রায়। আবাদি সরকার শুধু নয়, সংঘাতে প্ররোচনা দানকারী পরাশক্তিগুলি কেমন করিয়া এতসব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে, তাহাই এখন দেখিবার বিষয়।

তবে সকল কিছুকে ছাপাইয়া উঠিয়াছে বিশ্বের দুর্বল দেশ এবং তাহার নাগরিকদের নিরাপত্তার বিষয়টি। বিশ্বব্যাপী পরাশক্তিগুলি যেইভাবে সর্বপ্রকার ন্যায়নীতি অগ্রাহ্য করিয়া দুর্বলের উপর তাহাদের বাহুবল প্রদর্শন করিয়া চলিয়াছে তাহাতে আজ হউক, কাল হউক, উত্তর কোরিয়ার মতো সকল দেশকেই হয়ত আত্মরক্ষার্থে পরমাণু শক্তিধর হইয়া উঠিবার কথা ভাবিতে হইবে। অতএব, বিধ্বংসী সংঘাত এড়াইতে চাহিলে পরাশক্তিগুলিকে সংযত হইতে হইবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here