বেকার তরুণদের উদ্যোক্তা হইবার পরামর্শ

0
359

শিক্ষাজীবন শেষ করিয়া চাকরির পিছনে না ঘুরিয়া উদ্যোক্তা হইয়া শিল্প ও কলকারখানা তৈরি করিয়া দেশকে আর্থিকভাবে আগাইয়া লইতে পরবর্তী প্রজন্মের প্রতি আহ্বান জানাইয়াছেন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নর। শনিবার গোপালগঞ্জের এক কনফারেন্সের প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তৃতা করিতে গিয়া তিনি এই আহ্বান জানান। তাঁহার মতে, দেশে প্রতিবছর ১৮ হইতে ২০ লক্ষ মানুষ কর্মসংস্থানের বাজারে প্রবেশ করিতেছে। কিন্তু ইহার মধ্যে অর্ধেকের কম বিভিন্ন ধরনের চাকরি পাইতেছে। বাকিরা কোনো প্রতিষ্ঠানে কাজ করিবার সুযোগ পাইতেছে না। কিন্তু কর্মহীন বসিয়া না থাকিয়া তরুণদের ব্যবসায় উদ্যোগে নিজেদের যুক্ত করিতে হইবে। তাহা হইলে যেমন তাহার বেকারত্ব ঘুচিবে, তেমনি নূতন অনেক কর্মসংস্থান হইবে এবং দেশের অর্থনীতিও এইভাবে আগাইয়া যাইবে।

এই আহ্বান দিকনির্দেশনামূলক, তরুণদের পেশাগত ভাবনায় ইহা রেখাপাত করিবে হয়তো। কারণ সনাতনী ভাবনা অনুসারে তাহাকে চাকরিই করিতে হইবে, এমন নহে। তারুণ্যের শক্তির অপচয় রোধ করিয়া তাহা নানাভাবে ব্যবহূত হওয়া দরকার। জনবহুল বাংলাদেশের জনগণ আর বোঝা নহে, বরং তাহা সম্পদস্বরূপ। কারণ এই বিশাল জনগোষ্ঠীর বৃহত্তর অংশই তরুণ। একালের তরুণেরা অল্পেই হতাশ হইয়া পড়ে না, নানান কর্মোদ্যোগে নিজেকে যুক্ত করিবার জন্য তাহারা উন্মুখ হইয়া রহিয়াছে। তাহাদের চাকরির আশায় বসিয়া না থাকিয়া উদ্যোক্তা হইতে হইবে, ইহা একটি গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ। কিন্তু উদ্যোক্তা হওয়া তো সহজ নহে। উহার জন্য সর্বাগ্রে মূলধন প্রয়োজন, মূলধনের জোগান কীভাবে হইবে?

এইক্ষেত্রে সরকারের কিছু পদক্ষেপ রহিয়াছে। সরকার গঠন করিয়াছে ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোগ সংক্রান্ত এসএমই ফাউন্ডেশন। ক্ষুদ্র ও মাঝারি ঋণের জন্য সরকারের রহিয়াছে বিশেষ কর্মসূচি। নারী উদ্যোক্তাদের জন্য রহিয়াছে বিশেষ ব্যবস্থা। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি সংক্রান্ত উদ্যোগের জন্যও রহিয়াছে পৃথক সহায়তা কর্মসূচি। বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর জানাইয়াছেন, উদ্যোক্তা সৃষ্টির জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের বিশেষ পরিকল্পনা রহিয়াছে। এই লক্ষ্যে গ্রামাঞ্চলে ব্যাংকের শাখা সম্প্রসারণের জন্য সব বাণিজ্যিক ব্যাংককে উত্সাহিত করা হইতেছে। বৃহত্ শিল্পের জন্য যাহারা ঋণ লইয়া থাকে, তাহাদের তুলনায় ক্ষুদ্র ও মাঝারি ঋণগ্রহীতাদের মধ্যে খেলাপি হইবার প্রবণতা কম। স্বস্তির বিষয় হইল, তরুণ উদ্যোক্তাদের জন্য ঋণপ্রাপ্তির পথ প্রশস্ত হইতেছে। কিন্তু কিছু বাধা এখনও রহিয়া গিয়াছে। ব্যাংকিং-এর চিরাচরিত শর্ত অনুযায়ী ঋণগ্রহীতাকে স্থাবর সম্পত্তি বা অন্য কিছু জামানত হিসাবে প্রদর্শন করিতে হয়। তাহাতে সম্ভাব্য ঋণপ্রার্থীদের অনেকেই ঋণপ্রাপ্তির সুবিধা হইতে বঞ্চিত হইয়া পড়েন। অর্থাত্ উদ্যোক্তা হইতে হইলে ন্যূনতম কিছু সম্পদের অধিকারী হইতে হইবে। কিন্তু যাহাদের কোনো সম্পদই নাই, তাহারা কেন উদ্যোক্তা হইতে পারিবে না? ঋণপ্রাপ্তির ক্ষেত্রে তাই বিশেষত জামানতের বিষয়টি শিথিল করা প্রয়োজন। যেমন সম্পদ নাই, কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিগ্রি রহিয়াছে, এমন একজনের সনদই হইতে পারে জামানত। কয়েকজনের সম্মিলিত উদ্যোগ এবং তাহাদের সনদই তাহাকে ঋণপ্রাপ্তি সুনিশ্চিত করিবে—এইরকম সহজ উদ্যোক্তাবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টি করিতে হইবে। তাহাতে তরুণেরা অবলীলায় উদ্যোক্তায় পরিণত হইবে। উদ্যোক্তা হইবার পরামর্শ পাইয়া উত্সাহিত হইল যেই তরুণ, সম্পদ না থাকিবার কারণে যদি সে কোনো ঋণ বা মূলধন না পায়, তবে সেই সুপরামর্শ বিফলে যাইবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here